ঢাকা, বাংলাদেশ || সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯ || ১১ ভাদ্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ ডাকসুর অচলাবস্থার জন্য ছাত্রলীগ দায়ী ■ রুমিন হয়তো শিগগির বিয়েশাদি করবেন, তাই তার একটা প্লট দরকার ■ ভিটেবাড়ি ফেরত না দিলে মিয়ানমারে যাবে না রোহিঙ্গারা ■ সৌদির বিমান ঘাঁটিতে ড্রোন হামলা ■  রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে আর মূলধন দেবে না সরকার ■  পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ-পদোন্নতির নীতিমালা চূড়ান্ত ■ জাতীয় মহিলা পার্টির সভানেত্রী সালমা, সম্পাদিকা নাজমা ■ রাখাইনে তুমুল সংঘর্ষ, সেনাবাহিনীর বিমান হামলা ■ ২৫ দিনে হাসপাতালে ৪৫ সহস্রাধিক ডেঙ্গু রোগী ■ খেলাপি ঋণ এখনই কমার সুযোগ নেই ■ রাতের অন্ধকারে জামালপুর ত্যাগ করেছেন ডিসি ■ কেড়ে নেয়া হচ্ছে সেই ডিসির শুদ্ধাচার সনদ
জমজ দুই প্রতিবন্ধী শিশুর দায়িত্ব নিলেন ইউএনও
জিএম মিজান, বগুড়া
Published : Thursday, 27 June, 2019 at 9:51 PM

বগুড়ার শিবগঞ্জে হত দরিদ্র পরিবারের জমজ দুই প্রতিবন্ধী শিশু স্বাধীন ও বিজয়ের পাশে দাড়ালেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। জানা যায়, উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের আতাহার কুলুপাড়া গ্রামের মৃত: বিশ্বনাথ সরকার জিতু ও অন্তনা রানী সরকার এর সাত বছর বয়সের জমজ দুই প্রতিবন্ধী সন্তান স্বাধীন ও বিজয় জন্ম নেয়। জন্মের কিছুদিন পর বিশ্বনাথ সরকার জিতু মৃত্যু বরণ করেন।

স্বামীর মৃত্যুর পর অন্তনা রানী ২ প্রতিবন্ধী শিশুকে নিয়ে বিপাকে পড়ে। তার সংসারে হাল ধরার কেউ না থাকায় সে অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেন ও বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবন্ধী শিশুদের চিকিৎসার জন্য সাহায্য সহযোগিতার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়ান। বিষয়টি শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবীর জানার পর তাঁর দৃষ্টি গোচর হয়। পরে তিনি ওই অসহায় হত দরিদ্র্য পরিবারকে তার কার্যালয়ে ডেকে পাঠান। তিনি ওই হত দরিদ্র পরিবারকে জরুরী ভিত্তিতে প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড তুলে দেন। এসময় তিনি ওই দুই জমজ প্রতিবন্ধীদের চিকিৎসা, প্রতিবন্ধী কার্ড ও তাদের নিরাপত্তার সহ সার্বিক সহযোগিতার আশসাস প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে প্রতিবন্ধীর মা অন্তনা রানী সরকার বলেন, আমার ২জমজ সন্তান হওয়ার কিছুদিন পর থেকে তাদের লেবারের সমস্যা ও রক্ত শুন্যতা সৃষ্টি দেখা দেয়। আমি বিভিন্ন লোকজনের নিকট থেকে সাহায্য সহযোগি নিয়ে ছেলেদের চিকিৎসার জন্য, বিভিন্ন জায়গার ডাক্তারদের পরামর্শ নিয়েছি। কিন্তু যথই দিন যাচ্ছে ততই ছেলে দুটির মাথা বড় হতে থাকে এবং শরীর চিকন ও রক্ত শুন্যতা রোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বলেন প্রতি মাসে আমার ওই সন্তানদের শরীরে রক্ত দেওয়ার জন্য প্রতি মাসে ৪ হাজার টাকা প্রয়োজন হয়। কিন্তু আমার পক্ষে তা যোগার করা সম্ভব হচ্ছে না। ভাতা কার্ড প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ রিজু, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা সামিউল ইসলাম, নির্বাচন আনিছুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান এবিএম শাহজাহান চৌধুরী, আব্দুল গফুর মন্ডল, মোজাফ্ফর হোসেন প্রমুখ।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/জেএ

মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
সম্পাদক ও প্রকাশক
এফ. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft