ঢাকা, বাংলাদেশ || শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০ || ৯ ফাল্গুন ১৪২৬
শিরোনাম: ■ মঞ্চ ভেঙে পড়ে গেলেন মেয়র লিটন ■ ভোট ও বেঁচে থাকার অধিকার হরণ করা হয়েছে ■ খোকাকে নিয়ে ইশরাকের আবেগঘন দীর্ঘ স্ট্যাটাস ■ চাঁপাইনবাবগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শিশু ধর্ষণকারী নিহত ■ কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ ■ ছয় বিএসএফ সদস্যকে আটকের পর হস্তান্তর ■ ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপ‌তি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ■ বাংলা ভাষায় ওয়েবসাইট চালু করল মার্কিন দূতাবাস ■ চীনে করোনভাইরাসে ২৯ বিদেশী আক্রান্ত ■ এ সমস্যা শুধু বিএনপির নয়, গোটা জাতির সমস্যা ■ মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানো হবে ■ করোনাভাইরাসে দক্ষিণ কোরিয়ায় একজনের মৃত্যু
ভবেরচর-গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ সড়কের গাছ বিক্রির টেন্ডারে অনিয়ম
মুহাম্মদ নুরুন্নবী মুন্না, মুন্সীগঞ্জ
Published : Saturday, 24 August, 2019 at 4:49 PM

ভবেরচর-গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ সড়কের গাছ বিক্রির টেন্ডারে অনিয়ম

ভবেরচর-গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ সড়কের গাছ বিক্রির টেন্ডারে অনিয়ম

ভবেরচর-গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ মহাসড়ক মান ও প্রশস্থ উন্নীতকরনের কাজে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় সড়কের দুই পাশের গাছ বিক্রির টেন্ডার প্রক্রিয়ায় অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট কোটি টাকার গাছ হাতিয়ে নিয়েছে মাত্র ২৩ লাখ ৭৭ হাজার টাকায়। ওই সড়কের দুই পাশের গাছ বিক্রির জন্য টেন্ডার আহবান করে গজারিয়া উপজেলা পরিষদ। পাঁচটি প্যাকেজে ওই টেন্ডার আহবান করলে সর্বমোট ৭৩ টি দরপত্র বিক্রি হয়। তবে পাঁচ প্যাকেজে মোট ১৫ টি দরপত্র জমা পড়ে। প্রতিটি প্যাকেজে তিনটি করে দরপত্র জমা পড়ে। উপজেলা পরিষদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে- সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে ৪ লাখ ৫৭ হাজার ১০১ টাকায় একটি প্যাকেজের গাছ বিক্রির টেন্ডার পায় রাসেল আখন্দ নামে এক ব্যক্তি।

মো. নাছির উদ্দিন ৪ লাখ ৬৯ হাজার ৩২৫ টাকা ও ৫ লাখ ৩১ হাজার ২১২ টাকায় দুটি প্যাকেজের টেন্ডার পান। এছাড়া ৩ লাখ ৮৯ হাজার ৮৯০ টাকায় মো. সহিদ হোসেন এবং ৫ লাখ ২৯ হাজার ৭১৯ টাকায় মো. সহিদ অপর প্যাকেজের গাছ বিক্রির টেন্ডার পায়। এদে পাঁচটি প্যাকেজের সর্বমোট টেন্ডার মূল্য দাঁড়িয়েছে ২৩ লাখ ৭৭ হাজার ২৪৭ টাকা।

এদিকে, ভবেরচর-গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ সড়কের গাছ গুলো ৫০ থেকে ৩০ বছরের পুরনো। ২৪৩ টি গাছ বিক্রির জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়ায় পাঁচ প্যাকেজে ৭৩ টি দরপত্র বিক্রি সত্বেও জমা পড়ে মাত্র ১৫ টি। একেকটি প্যাকেজে নিয়ম রক্ষার তিনটি করে দরপত্র জমা পড়ে। অর্ধশত বছরের পুরনো একেকটি কড়ই গাছের কয়েক লাখ টাকা বাজার মূল্য রয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবী। ৩০ বছরের পুরনো একেকটি গাছেরও বাজারে বিক্রি মূল্য রয়েছে লাখ টাকার উপড়ে। সব কিছু মিলিয়ে সড়কের ওই গাছ গুলোর বাজার মূল্য কোটি ছাড়িয়ে যাবে বলে স্থানীয়রা মনে করেন। তারা বলেন, নিয়ম রক্ষার জন্য প্রতিটি প্যাকেজে তিনটি করে দরপত্র জমা পড়ার ঘটনাটি টেন্ডার প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। পাশাপাশি কোটি টাকার গাছ নাম মাত্র মূল্যে টেন্ডার দেওয়া হয়েছে।

জেলার ভারপ্রাপ্ত বন কর্মকর্তা আবু তাহের জানান, সড়কের দুই পাশের ২৪৩ টি গাছ বিক্রির জন্য ৫ টি প্যাকেজে ভাগ করা হয়। গাছ গুলোর মধ্যে স্বল্প সংখ্যক ৩০ বছর বয়সী ও অধিকাংশই ৩০ বছরের নীচে। প্রথম প্যাকেজে এক থেকে ৫০ পর্যন্ত গাছের সরকারি ভাবে ৪ লাখ ৪৬ হাজার ৭৭১ টাকা মূল্য নির্ধারন করে বন বিভাগ।

দ্বিতীয় প্যাকেজে ৫১ থেকে ১০০ পর্যন্ত গাছের সরকারি মুল্য ৪ লাখ ১৯ হাজার টাকা, তৃতীয় প্যাকেজে ১০১ থেকে ১৫০ পর্যন্ত গাছের সরকারি মূল্য ৩ লাখ ৮৮ হাজার টাকা, চতুর্থ প্যাকেজে ১৫১-২০০ পর্যন্ত গাছের সরকারি মূল্য ৫ লাখ ৪ হাজার ও ২০১-২৪৩ পর্যন্ত গাছের সরকারি মুল্য ৫ লাখ ২৮ হাজার টাকা মূল্য নির্ধারন করা হয়। টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবী করেন ভারপ্রাপ্ত বন কর্মকর্তা। তবে এ প্রসঙ্গে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসান সাদী বলেন, শতভাগ স্বচ্ছতার সঙ্গে টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।  

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এনকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  মুন্সীগঞ্জ   গাছ   টেন্ডার  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft