ঢাকা, বাংলাদেশ || শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ || ৪ আশ্বিন ১৪২৬
শিরোনাম: ■ মেরিন ড্রাইভ সড়কে দূর্ঘটনায় মা-ছেলে নিহত ■ অবৈধ ক্যাসিনো ছাড়াও খালেদের ছিল বিশেষ টর্চার সেল ■ ৭ দিনের রিমান্ডে যুবলীগের খালেদ ■ ছাত্রলীগের পর যুবলীগকে ধরেছি ■ নজরদারিতে সম্রাট, শিগগিরই গ্রেফতার! ■ সব অবৈধ ব্যবসার বিরুদ্ধে অভিযান চলবে ■ যুবলীগ নেতা খালেদকে গুলশান থানায় হস্তান্তর ■ মার্কিন ড্রোন হামলায় আফগানিস্তানে নিহত ৩০ ■ খুনি নূর চৌধুরীর অবস্থান প্রকাশে বাধা নেই ■ ক্যাসিনোর সাথে জড়িতদের নাম বলছেন যুবলীগ নেতা খালেদ ■ নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের ৩ জনকে গলা কেটে হত্যা ■ ২৬ জেলা জজসহ ৫৩ বিচারক বদলি
সেই নবজাতকের ঠাঁই হলো ছোট মণি নিবাসে
দেশসংবাদ ডেস্ক
Published : Wednesday, 4 September, 2019 at 9:10 PM

অবশেষে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের সিঁড়ি থেকে উদ্ধার সেই নবজাতকের ঠাঁই হলো সরকারি ছোট মণি নিবাসে।

আদালতের নির্দেশে বুধবার দুপুরে তাকে বিশেষ ব্যবস্থায় ঢাকার আজিমপুরের ছোট মণি নিবাসে পাঠায় সমাজসেবা বিভাগ।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া ১২ দিনের এ নবজাতককে কিশোরগঞ্জ সমাজসেবা অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. কামরুজ্জামান খান ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সালমা আক্তারের হাতে হস্তান্তর করেন।

পরে একটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়িতে করে বিশেষ ব্যবস্থায় আজিমপুরের ছোট মণি নিবাসে পাঠানো হয়।
গত ২৬ আগস্ট থেকে ওই নবজাতককে নবজাতক ওয়ার্ডে ভর্তি করে দেখভাল পরিচর্যা ও সেবা শুশ্রূষা করছিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জন্মের পর মাতৃক্রোড়ে ভাবনাহীন বেড়ে ওঠার কথা থাকলেও ১ দিন বয়সে এই ছেলে শিশুটির ঠাঁই হয়েছিল কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে। প্রচণ্ড চিৎকারে আগমনী বার্তা জানিয়ে ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরই মা ও বাবার স্নেহ-ভালবাসার পরিবর্তে সে দেখলো নিষ্ঠুর পৃথিবীর এমন ভয়ঙ্কর রূপ।

সিঁড়ি থেকে উদ্ধারের পর অজ্ঞাত পরিচয়ে এখানে ১১ দিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি ছিল শিশুটি। এ হিসাবে তার বয়স বুধবার ১২ দিন।

কিশোরগঞ্জের আইন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, খবর পেয়ে বেশ কয়েকজন ব্যক্তি এ নবজাতককে দত্তক নিতে সমাজকল্যাণ বিভাগের সুপারিশ নিয়ে আদালতের স্মরণাপন্ন হয়েছিলেন। কিন্তু মুসলিম দত্তক আইন না থাকায় ঝুলে ছিল আদালতের সিদ্ধান্ত। শেষ পর্যন্ত আদালত এ নবজাতকটিকে সরকারি ছোট মণি নিবাসে পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন।

জানা গেছে, গত ২৬ আগস্ট ২৫০ শয্যার কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের সিঁড়িতে লুটিয়ে পড়ে ১-২ দিন বয়সের এ নবজাতককে আর্তচিৎকার ও কাঁদতে দেখে লোকজন ঘটনাটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানায়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার পিতামাতা কিংবা কোনো স্বজনের সন্ধান না পেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শিশুটিকে উদ্ধার করে নবজাতক ওয়ার্ডে ভর্তি করে সেবা শুশ্রূষার দায়িত্ব নেয়।

বিষয়টি জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও সমাজকল্যাণ বিভাগকে অবহিত করা হয়। সমাজকল্যাণ বিভাগ নবজাতকের অভিভাবক নির্ধারণে আদালতের নির্দেশনা চেয়ে সুপারিশপত্র পাঠায়।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান ও কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট মায়া রাণী ভৌমিক বলেন, অনেক হৃদয়বান ব্যক্তি এ ধরনের অসহায় ও অনাথ নবজাতক এবং শিশু-কিশোরদের পাশে দাঁড়াতে চান, দত্তক নিতে কিংবা অভিভাবক হতে চান। কিন্তু মুসলিমদের ক্ষেত্রে দত্তক আইন না থাকায় মানবিক উদ্যোগ ভেস্তে যায়। তিনি অবিলম্বে মুসলিম দত্তক আইন প্রবর্তনের দাবি জানিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক জানান, ওই কুঁড়িয়ে পাওয়া শিশুটিকে দত্তক নিতে একজন পুলিশ কনস্টেবলসহ চার ব্যক্তি আগ্রহ প্রকাশ করে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু আইন না থাকায় তা হয়নি।

তিনি আরও জানান, আমাদের দেশে মুসলিমদের জন্যও এ দত্তক আইনটি ছিল। কিন্তু এ আইনটির যথেচ্ছ ব্যবহারের কারণে ১৯৮২ সালের দিকে রহিত করা হয়। তবে এখনকার বাস্তবতায় এ আইন পুনঃপ্রবর্তন জরুরি হয়ে উঠেছে।

দেশসংবাদ/এসকে

মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
সম্পাদক ও প্রকাশক
এফ. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft