ঢাকা, বাংলাদেশ || মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ || ৭ কার্তিক ১৪২৬
শিরোনাম: ■ ক্যাসিনোর বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে মেননকে ■ ‘১ মিনিটেই নগদ অ্যাকাউন্ট’ উদ্বোধন করলেন জয় ■ সড়ক নিরাপদ রাখার দায়িত্ব সকলের ■ ফের কানাডার ক্ষমতায় জাস্টিন ট্রুডো ■ ভোলার পুলিশ সুপারের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি হ্যাক ■ বসিয়েই নষ্ট করা হচ্ছে ড্রিমলাইনারের সার্ভিস মেয়াদকাল ■ পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের পর গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেবে তুরস্ক ■ এমপিওভুক্ত হচ্ছে ২৭৬৮ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কাল ঘোষণা ■ কাওসার-মারুফসহ ২০ জনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ ■ আন্দোলন সম্পর্কে কিছুই জানতেন না মাশরাফি ■ ঢাকায় বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর ২৮৮টি ট্রফিসহ চামড়া উদ্ধার ■ সাকিবদের ধর্মঘট নিয়ে কথা বললেন সৌরভ গাঙ্গুলি
গাংনীতে ব্যাংক স্বেচ্ছাচারিতার কারণে ঋণ বিতরণ কম
লিটন মাহমুদ, মেহেরপুর
Published : Monday, 7 October, 2019 at 8:08 PM

মেহেরপুরের  গাংনীতে ব্যাংক ব্যবস্থাপক ও ম্যানেজারদের উদাসিনতা ও স্বেচ্ছাচারিতার কারণে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণের হার খুব কম। উপজেলায় কৃষিসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষে সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ বিতরণের কথা থাকলেও ব্যাংক কর্মকর্তারা সেই নির্দেশ পালন করছেন না।

ফলে বিভিন্ন ফসল উৎপাদন,মসলা জাতীয় শস্য, গরু ছাগল মোটাতাজাকরণ,ক্ষুদ্র শিল্পসহ নানা রকম উন্নয়নে ব্যাংক সহায়তা না পাওয়ার কারণে করতে পারছেন না। সেকারণে সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনা ভেস্তে যাচ্ছে।

উপজেলার বিভিন্ন ব্যাংকের অফিসার ও ম্যানেজার এবং উপজেলা কৃষি ঋণ কমিটির সদস্য সচিবের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, গাংনী সোনালী ব্যাংক লিমিটেডে চলতি অর্থবছরে ঋণ বিতরণের জন্য ১ কোটি ৩৫ লাখ  টাকা, সোনালী ব্যাংক গাড়াডোব বাজার শাখায় ১ কোটি ২৮ লক্ষ ৬৬

হাজার, জোড়পুকুরিয়া শাখায় ২ কোটি ২৬ লক্ষ ৪৩  হাজার ,বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক গাংনী শাখায় ৬৩ কোটি ২৭ লক্ষ টাকা, কাথুলী শাখায় ৯ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা, জনতা ব্যাংক শাখায়  ২ শ’ ৬ কোটি টাকা, বিআরডিবি (গাংনী) ৩ কোটি ৭০ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা,কর্মসংস্থান ব্যাংক ৪ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা ও আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকে ২ কোটি ৬৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

চলতি অর্থবছরের  ৩ মাস শেষ হলেও বিভিন্ন ব্যাংকে ঋণ বিতরণের হার অদ্যাবধি নিরুম, গাংনী সোনালী ব্যাংকে ৭.২৪ শতাংশ, গাড়াডোব শাখায় ২০ শতাংশ,জোড়পুকুরিয়া শাখায় ১৮.২৮ শতাংশ,কৃষি ব্যাংক গাংনী শাখায় মাত্র ২ শতাংশ, কাথুলী শাখায় ৭৬ শতাংশ, জনতা ব্যাংকের ঋণ বিতরণ ২৬ শতাংশ, বিআরডিবি শাখায় ৫১ শতাংশ, কর্মসংস্থান ব্যাংক শাখায় ১০ শতাংশ ও আনসার ভিডিপি ব্যাংক শাখায় মাত্র ৪ শতাংশ ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। যা বরাদ্দের তুলনায় একেবারেই অপ্রতুল।

এখানে লক্ষণীয় কাথুলী কৃষি ব্যাংক ও বিআরডিবি শাখায় ঋণ বিতরণের হারও বেশী আদায়ের হারও বেশী। অথচ রাস্ট্রীয় ব্যাংকগুলোতে নানা অযুহাত দেখিয়ে চাহিদানুযায়ী কৃষি ঋণ বিতরণ করছেন না।
দালালদেও মাধ্যমে অল্প সংখ্যক কয়েকজনকে ঋণ বিতরণ করা হলেও বেশীরভাগ ঋণ  সুবিধা পেতে ইচ্ছুক গ্রাহকগণ ঋণ থেকে বঞ্চিত রয়েছেন।  

এদিকে  খেলাপী ও শ্রেণিকৃত ঋণ আদায়ের জন্য খাতকদের বিরুদ্ধে সার্টিফিকেট মামলা দায়ের করা হয়েছ্।

গাংনী সোনালী ব্যাংক শাখায় খেলাপী সাড়ে ২২ লক্ষ টাকা আদায়ের জন্য ২৯ জনের নামে,জোড়পুকুরিয়া সোনালী ব্যাংক শাখায় ৬৯ লক্ষ টাকা আদায়ের জন্য ৪ জনের নামে, গাংনী কৃষি ব্যাংক শাখায় ৬১ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা আদায়ের লক্ষে ৩০ জনের নামে,জনতা ব্যাংকের ১০ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকার বিপরীতে ৩৭ জনের নামে, বিআরডিবি ব্যাংকের ৩ লক্ষ ৩৬ হাজার  টাকা আদায়ের লক্ষে ৩১ জনের নামে, গাংনী ইউবিসিসিএ – ৩ লক্ষ ০৮ হাজার ও বিপরীতে ১৪ জনের নামে সার্টিফিকেট মামলা চলমান রয়েছে।দেখা গেছে,এপর্যন্ত জনতা ব্যাংকে ৬ জন ও বিআরডিবি ব্যাংকে মাত্র ২ জন খেলাপী ঋণ পরিশোধ করেছেন।

নিষ্পন্ন মামলার  সংখ্যা খুবই কম।এখানে  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক ঋণ গ্রাহক জানিয়েছেন, ব্যাংকগুলোতে দালাল না ধরলে ঋণ মেলেনা।অন্যদিকে রাজনৈতিক বিবেচনায় যাচাই বাছাই না করে ভূয়া ভাবে ঋণ গ্রহণ কওে থাকে।

ফলে সেইসব ঋণ খেলাপীরা সময় মত ঋণ পরিশোধ করে না। পাশাপাশি ক্ষুদ্র ঋন গ্রহিতাদের  ঋণ খেলাপী হলে তাদের বিরুদ্ধে সার্টিফিকেট মামলা হলেও মোটা অংকের ঋণ খেলাপীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।
    
এনিয়ে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক গাংনী শাখার ব্যবস্থাপক মিনহাজউদ্দীন জানান, চলতি বছরের বরাদ্দ অনুযায়ী আমরা কৃষি ঋণ বিতরণ করতে পারি।

কারন হিসাবে বলতে পারি, বিতরণকৃত ঋণ আদায়ের লক্ষমাত্রা অনেকসময় পূরণ হয়না। এটি একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান, সেকারনে আমরা যাচাই বাছাই করে  ঋন প্রদান করে থাকি। এছাড়া লোকবলের অভাবেও  মাঠ পর্যায়ে ঋণ আদায় ঠিকমত করা হয়না।

একইভাবে গাংনী সোনালী ব্যাংক শাখার ব্যবস্থাপক ও উপজেলা কৃষি ঋণ বিতরণ কমিটির সদস্য সচিব হাশিমউদ্দীন (স্থলাভিসিক্ত) জানান, চলতি বছরের বরাদ্দ অনুযায়ী কৃষি ঋণ আমরা লোকবলের অভাবে বিতরণ করতে পারছি না। অন্যদিকে খেলাপী ঋণ আদায়ে তেমন অগ্রগতি আমরা দেখাতে পারছি না।

এব্যাপারে গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা ঋণ বিতরণ কমিটির সভাপতি দিলারা রহমান জানান,আমি নতুন এসেছি। ব্যাংকের বিষয়টি আমি এখনো খোঁজ খবর নিতে পারিনি। তবে ৩ মাসে ঋণ বিতরণের রিপোর্ট সন্তোষজনক নয়।

আমি ব্যাংক কর্মকর্তাদের ডেকে নিয়ে নির্দেশনা দেব। কৃষিঋণ বিতরণে গাফিলতি বা অনিয়ম হলে দোষী ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঋণ বিতরণের গাইড লাইন ধরে ঠিকমত ঋণ বিতরণ করতে হবে।   

দেশসংবাদ/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  গাংনীতে   ব্যাংক   



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft