ঢাকা, বাংলাদেশ || বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ || ২ কার্তিক ১৪২৬
শিরোনাম: ■ সন্ত্রাসীদের আত্মসমর্পণ করতে বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ■ বড় ভাইয়ের নির্দেশে আবরারকে ডেকে এনে মুখে কাপড় দিয়ে মারা হয় ■ সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ ডেকেছে ঐক্যফ্রন্ট ■ ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ■ ফের কাশ্মীরে গোলাগুলি, ৩ সন্ত্রাসী নিহত ■ জাপানে টাইফুন হাগিবিসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ ■ বালিশকাণ্ডে গণপূর্তের ১৬ কর্মকর্তা বরখাস্ত ■ ফেনীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩৭ মামলার আসামি নিহত ■ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ভারতের সাথে বাংলাদেশের ড্র ■ ডিসেম্বরে বহুল প্রত্যাশিত ই-পাসপোর্ট উদ্বোধন ■ সম্রাট মারা গেলে দায় নেবে কে? ■ আবরার হত্যাকাণ্ডে কূটনীতিকদের বিবৃতি ‘অহেতুক’
লাখাইয়ে চুরি ডাকাতি আতংকে এলাকাবাসী
মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)
Published : Wednesday, 9 October, 2019 at 2:19 PM

জেলার পাশ্ববর্তী হবিগঞ্জ জেলার ও নাসিরনগর উপজেলার প্রতিবেশী গ্রাম লাখাই উপজেলার মোড়াকুড়ি ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামে ঘন ঘন চুরি ডাকাতির ঘটনায় আতংকে রয়েছে গ্রামবাসী।

জানা গেছে ইতিমধ্যে ওই গ্রামে বেশ কয়েকটি চুরি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।ডাকাতির সাথে জড়িত থাকা ব্যক্তিদের চিনতে পারলেও ভয়ে কেউ মুখ খোলে নাম বলার সাহস পাচ্ছে না বলে জানায় স্থানীয়রা।  

ফুলবাড়িয়া গ্রামের রেজু মিয়ার স্ত্রী আছিয়া বেগম (৩৪) জানায়,২০১৬ সালে ও ২০১৭ সালের জুলাই মাসে তার বাড়ীতে পরপর দুইটি ডাকাতি সংঘটিত হয়।

ওই ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। পরে ডাকাতদের হুমকিতে প্রাণের ভয়ে তিনি তার স্বামী সন্তানদের নিয়ে গ্রাম ছেড়ে বর্তমানে ঢাকায় বসবাস করছেন।

তাছাড়াও গ্রামের খেলু মিয়া ও তার ছেলে সেন্টু মিয়ার বাড়ীতে,খায়রুল মিয়ার ছেলে সাজু মিয়ার বাড়ীতে, মসকর আলীর ঘরে, হাজী আব্দুর রৌফ ও  জিয়াউর রহমানের দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। তাছাড়াও কদর আলীর ছেলে, কামাল মিয়ার ঘরে চুরি সংঘটিত হয়।

গত শনিবার রাতে ফুলবাড়িয়া গ্রামের মিলন মিয়ার বাড়ীতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ বিভিন্ন সড়কে চেক পোষ্ট বসিয়ে সাড়াশি অভিযান চালিয়ে চার ডাকাতকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।

ওই ঘটনায় লাখাই থানায় একটি ডাকাতি মামলা হয়। ওই ডাকাতির সাথে জড়িত বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে লাখাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সাইদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করে এ সমস্ত ডাকাতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি নতুন এসেছি। এসব বিষয়ে কিছু জানি না। ডাকাতির মামলার  তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মোঃ মোবারক হোসেন বলেন  সব ঠিক না।

লাখাই উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া মোজাহিদের সাথে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি  রেজু মিয়া তার পরিবার নিয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে শহরে যাওয়ার বিষয়টি সত্য বলে জানান।

তিনি আরো বলেন এ সমস্ত বিষয়ে আমরা মাসিক আইন শৃংখলা সভায় আলোচনা করে রেজুলেশন করি। শনিবারের ঘটনায় হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার নিজে মাঠে নেমে আসামী গ্রেপ্তার করেছেন।  

এ বিষয়ে মোড়াকুড়ি ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান  মর্জিনা বেগমের সাথে  যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কোন ডাকাতির ঘটনা আমি নিজের চোখে দেখিনি। সব চেয়ারম্যান জানে।

চেয়ারম্যান দেশের বাহিরে আছেন বলে জানান তিনি। গ্রামের চোর ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসলে এ সমস্ত চুরি ডাকাতি বন্ধ হবে বলে দাবী স্থানীয়দের।

দেশসংবাদ/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  লাখাইয়ে   চুরি   ডাকাতি   



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft