ঢাকা, বাংলাদেশ || শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ || ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
শিরোনাম: ■ জয়ী হলেন টিউলিপ-রুশনারা-রূপা-আফসানা ■ দু’মন্ত্রীর সফর বাতিল করে মোদিকে হাসিনার কড়া বার্তা! ■ ব্রিটেনে বড় জয় পেলেন বরিসের কনজারভেটিভ পার্টি ■ টেকনাফে ৮ লাখ ইয়াবাসহ ৪ মাদক কারবারী আটক ■ নির্বাচিত হলেন টিউলিপ সিদ্দিক ■ প্রতি কেজি পেঁয়াজের বিমানভাড়া ১৫০ টাকা! ■ আগুনে আহতদের ৫০ হাজার করে দিলো শ্রম মন্ত্রণালয় ■ মিয়ানমারকে বিশ্বাস করা যায় না ■ আর সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি নেবে না জবি ■ রংপুরে ১৪১ জন মাদক ব্যবসায়ীর আত্মসমর্পণ ■ খালেদাকে ১৭ বছর জেল খাটতে হবে ■ পা ছুঁয়ে সালাম করতেই এনামুরকে যা করলো নূর
ধুনটে বাবার লাশ রেখে পরীক্ষা কেন্দ্রে পপি
রফিকুল আলম,ধুনট (বগুড়া)
Published : Monday, 18 November, 2019 at 3:55 PM

ধুনটে বাবার লাশ রেখে পরীক্ষা কেন্দ্রে পপি

ধুনটে বাবার লাশ রেখে পরীক্ষা কেন্দ্রে পপি

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় বাবার লাশ বাড়িতে রেখে সহপাঠীদের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা দিয়েছে শোকাহত পপি খাতুন নামে এক ক্ষুদে শিক্ষার্থী।

সোমবার সকালে উপজেলার ভান্ডারবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ০৪ নম্বর কক্ষে বসে বাংলা বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নেয় পপি। তার রোল নম্বর ম-৩০৮৫। সোমবার সকাল ৯টার দিকে মারা যান পপি খাতুনের বাবা শহিদুল ইসলাম (৫০)। বাবার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতেই শোককে শক্তিতে পরিণত করে পরীক্ষা কেন্দ্রে এসেছে পপি খাতুন।

পপি খাতুন উপজেলার চুনিয়াপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম ও ঝলমলি বেগমের মেয়ে। পপির বাবা শহিদুল ইসলাম নির্মান শ্রমিক ছিলেন। সোমবার সকালের দিকে নিজ বাড়িতে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। স্বজনরা তাকে চিকিৎসা করার সুযোগ পাননি। তাৎক্ষনিক ভাবে স্বজনদের ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে যান পপির বাবা শহিদুল ইসলাম।

শিক্ষার্থীরা বাড়ি থেকে বাবা-মায়ের দোয়া নিয়ে পরীক্ষার কেন্দ্রে যায়। কিন্তু সেই সৌভাগ্য হয়নি পপির। বাবার দোয়ার পরিবর্তে বাবার লাশ বাড়িতে রেখেই কেন্দ্রে যেতে হয় তাকে। এক হাতে চোখ মুছে আর অন্য হাতে খাতায় উত্তর লিখেছে পপি। পপি খাতুন উপজেলার আটাচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এবছর পিইসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।

এদিকে শোক সংবাদ পেয়ে উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল শোকাহত পপি খাতুনের খোঁজখবর নিতে কেন্দ্রে ছুটে আসেন। পপির পাশে দাড়িয়ে সান্তনা দেন। সে সময় পপির কান্নায় কক্ষের অনেকের চোখেই পানি চলে আসে। পপি ভালোভাবে পরীক্ষা দেয়া ও বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করেন ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল।

পপির বাবার মৃত্যুতে পরীক্ষা কেন্দ্রে শোকের ছায়া নেমে আসে। পপির সহপাঠী, শিক্ষকসহ অন্যরাও তাকে সান্তনা দিতে পরীক্ষা শেষে কেন্দ্রে ছুটে আসেন। পরীক্ষা শেষে ববার দাফন সম্পন্ন করার জন্য পপি খাতুন চোখ মুছতে মুছতে বাড়ির পথে রওনা হন।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  ধুনট   বাবার লাশ   পরীক্ষা   পপি  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft