ঢাকা, বাংলাদেশ || বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০ || ৯ মাঘ ১৪২৬
শিরোনাম: ■ বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ শুরু ■ প্রবাসীরা যেন হয়রানির শিকার না হন সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে ■ লেমিনেটেড পোস্টার ছাপানো ও প্রদর্শন বন্ধে হাইকোর্ট নির্দেশ ■ সীমান্তে ২ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা ■ সিরিয়ায় বিমান হামলায় নিহত ৪০ ■ ট্রাম্পের অভিশংসনের বিচার শুরু ■ কেরানীগঞ্জে ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪ ■ ট্রাম্পকে হত্যা করতে পারলে ৩ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ■ সিটি নির্বাচনে সেনাবাহিনী থাকছে না ■ তাবিথের ওপর হামলা তদন্তের নির্দেশ ■ কিছু কিছু মৃত্যু সত্যিই অত্যন্ত কষ্টের ■ মুজিববর্ষে বাড়ি পাবে ৬৮ হাজার দুস্থ পরিবার
ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর মুক্ত দিবস আজ
ইসমাইল হোসেন বাবু, কুষ্টিয়া
Published : Sunday, 8 December, 2019 at 11:16 AM, Update: 08.12.2019 11:32:56 AM

ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর মুক্ত দিবস আজ

ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর মুক্ত দিবস আজ

আজ ৮ ডিসেম্বর কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর শুত্রু মুক্তদিবস।  ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা পাকহানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়েছিলেন। এই দিন ৮নং সেক্টরের কমান্ডার মেজর আবুল মুনছুরের নেতৃত্বে জেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা রাশেদুল আলম’র নেতৃত্বে ২ ভাগে বিভক্ত হয়ে ভোর ৭টার সময় ভেড়ামারা ফারাকপুরে পাকহানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। সেই সময় প্রায় ৭ ঘন্টা ব্যাপী এই যুদ্ধে ৮ জন পাক সেনা নিহত হয়। যুদ্ধের পর পরই মুক্তিযোদ্ধাদের গুলিতে প্রায় ৫০/৬০ জন বিহারী নিহত হয়।

এই ঘটনার সংবাদ পেয়ে ভেড়ামারায় অবস্থানরত পাকবাহিনীর অন্যান্য সদস্য বৃন্দের মনোবল ভেঙ্গে যায়। তারা সন্ধ্যার আগেই ভেড়ামারা থেকে হার্ডিঞ্জ ব্রীজ দিয়ে পালিয়ে যায়। এই দিন রাতে মুক্তিপাগল মানুষ ও মুক্তিযোদ্ধারা দলে দলে ভেড়ামারায় প্রবেশ করতে থাকেন। তারা বিজয়ের আনন্দে মেতে ওঠে। ভেড়ামারা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এ্যাডঃ আলম জাকারিয়া টিপু ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে থেকে ৮ ডিসেম্বর মুক্ত দিবস পালন উপলক্ষ্যে র‌্যালীসহ ব্যাপক কর্মসূচি পালন করেন।

৮ ডিসেম্বর কুষ্টিয়ার মিরপুর থানা পাকহানাদার মুক্ত দিবস। বাঙ্গালী ও বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের একটি স্মরণীয় দিন। ১৯৭১ সালের এ দিনে বহু ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে জেলার মিরপুর থানা পাকহানাদার মুক্ত হয়েছিল। সে থেকে এ দিনটি মিরপুর থানা পাকহানাদার মুক্ত দিবস হিসেবে ইতিহাসের পাতায় স্থান পায়।

১৯৭১ সালের ৩১ মার্চ তৎকালীন ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি ও বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিটের সহকারী কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খানের নেতৃত্বে শতাধিক মুক্তিকামী ছাত্রজনতা বর্তমান মাহমুদা চৌধুরী কলেজ রোডস্থ পোষ্ট অফিস সংলগ্ন মসজিদে শপথ গ্রহণ করেন। ৩০ মার্চ শেষ রাতে কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে প্রতিরোধ যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার পর জিলা স্কুলে পাকহানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শুরু হলে পাকবাহিনী নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পেরে যশোর সেনানিবাসের সাহায্য চায়।

ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর মুক্ত দিবস আজ

ভেড়ামারা, মিরপুর ও দৌলতপুর মুক্ত দিবস আজ

কিন্তু সেখান থেকে কোন সাহায্য না পাঠানোর সংকেত দিলে হানাদার বাহিনী রাতের অন্ধকারে তিনটি ডজ গাড়িতে করে গুলি বর্ষণ করতে করতে যশোর সেনানিবাসের দিকে পালিয়ে যেতে থাকে। এ সময় পাক সৈন্যরা ২টি গাড়ী ঝিনাইদহ জেলার গাড়াগঞ্জের কাছে রাসত্মায় কেটে তৈরী মুক্তিবাহিনীর ফাঁদে পড়ে যায় এবং ওই এলাকার বিক্ষুদ্ধ জনতা ও মুক্তিবাহিনীর হাতে নিহত হয়। পাকসেনাবাহিনীর অপর ৬ জন সদস্য ভোরে জিলা স্কুল থেকে মিরপুরের দিকে পালিয়ে আসতে থাকে।

প্রথম তারা মশান বাজার সংলগ্ন মাঠের মধ্যে তীব্র প্রতিরোধের মধ্যে পড়ে কিন্তু পাক সৈন্যদের গুলিতে মশানের ডাঃ আব্দুর রশিদ হিলম্যান, গোলাপ শেখ, আশরাফ আলী ও সোনাউল্লাহ শহীদ হন। মিরপুর থানার কামারপাড়ায় বিছিন্ন ৩ পাকহানাদারের সাথে স্থানীয় মুক্তিকামীদের আবারও যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে মিরপুর থানার সিপাহী মহিউদ্দিন শহীদ হন। অপর পক্ষে পাকবাহিনীর ওই ৩ সদস্যও নিহত হয়।

৮ ডিসেম্বর ভোরে ই-৯ এর গ্রুপ কমান্ডার আফতাব উদ্দিন খান ১শ’ ৭০ জন মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে মিরপুর থানায় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা গান স্যালুটের মাধ্যমে উত্তোলন করেন। এর পর ৬৫ জন পাকহানাদার বাহিনীর দোসর ও রাজাকার পাহাড়পুর মুক্তিবাহিনীর ক্যাম্পে আত্মসমর্পন করে। মিরপুর হানাদার মুক্ত হওয়ার সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ১৯৭১ সালের এই দিনে বিভিন্ন বয়সের হাজারও নারী-পুরুষ রাসত্মায় নেমে আনন্দ উল্লাস করতে থাকে।

৮ ডিসেম্বর কুষ্টিয়ার দৌলতপুর হানাদার মুক্ত দিবস । দীর্ঘ ৯ মাস সশস্ত্র সংগ্রামের পর আজকের দিনে দৌলতপুর হানাদার মুক্ত হয়। ১৯৭১ সালের এই দিনে দৌলতপুরকে শক্র মুক্ত করে থানা চত্বরে বিজয় পতাকা উড়ানোর মধ্যদিয়ে মুক্তিকামী বীর সূর্য সমত্মানেরা দৌলতপুরকে হানাদার মুক্ত করেন। দৌলতপুরকে হানাদার মুক্ত করতে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকসেনাদের সন্মুখ যুদ্ধসহ ছোট-বড় ১৬ টি যুদ্ধ সংঘঠিত হয়। এসকল যুদ্ধে ৩৫জন বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ কয়েক’শ নারী-পুরুষ শহীদ হন।

৮ ডিসেম্বর সকালে উপজেলার আল্লারদর্গা এলকায় পাক সেনাদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে শহীদ হোন বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিক। মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র প্রতিরোধের মুখে টিকতে না পেরে পিছু হটতে বাধ্য হয় পাক সেনারা। এরপর দৌলতপুরকে হানাদার মুক্ত ঘোষনা করেন তৎকালীন মুক্তিযোদ্ধা ৮নং সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডার মেজর নুরুন্নবী। দিবসটি পালনের লক্ষে দৌলতপুর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড র‌্যালি, মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও আলোচনা সভা করে।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  ভেড়ামারা   মিরপুর   দৌলতপুর   মুক্ত   দিবস   



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft