ঢাকা, বাংলাদেশ || বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০ || ১০ মাঘ ১৪২৬
শিরোনাম: ■ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অন্তর্বর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ ■ স্বর্ণদ্বীপে অপারেশন বিজয় গৌরব’ প্রত্যক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী ■ বিএনপি প্রার্থীরা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় ■ ট্যাংকার বিমান বিধ্বস্তে ৩ মার্কিন নাগরিক নিহত ■ সিটি নির্বাচনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ কোন পরিবেশ দেখছি না ■ সীমান্তে ৩ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা ■ দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৩৩০০ মিটার ■ ইরানের শীর্ষ কমান্ডার মোজাদ্দামিকে হত্যা ■ চীনের ভাইরাসে মৃত ১৭, বিশ্বজুড়ে শঙ্কা ■ ভোটের দিন ঢাকায় প্রাইভেট কার চলবে না ■ বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থী নিজামুদ্দিনের ওপর হামলা! ■ সিটি নির্বাচনে চমৎকার পরিবেশ বজায় রয়েছে
সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি হয়েও সনদ পাননি মুক্তিযোদ্ধা সুলতান
দেশসংবাদ ডেস্ক
Published : Monday, 6 January, 2020 at 11:31 PM

মুক্তিযোদ্ধা সুলতান আহম্মেদ

মুক্তিযোদ্ধা সুলতান আহম্মেদ

সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি, যুদ্ধকালীন সময় অস্ত্র বন্টনের দায়িত্ব পালন ও  ভারতে মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিংয়ে পাঠানো সহ মুক্তিযুদ্ধে সর্বাত্মক অংশ নিয়েও সনদ পাননি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের  কুমারখালি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সুলতান আহম্মেদ।

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষনের পরে ঝালকাঠির দপদপিয়া ইউনিয়নে সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন মুক্তিযোদ্ধা সুলতান আহম্মেদ। তিনি ছিলেন এই  সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি। সাধারণ সম্পাদক ছিলেন চান মিয়া। মুক্তিযুদ্ধ  শুরু হয়ে গেলে সুলতান আহম্মেদের দায়িত্ব পরে দপদপিয়া অস্ত্র বন্টনের। দপদপিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পাশেই ছিলো প্রাইমারী স্কুল। এই স্কুলের  শিক্ষক ছিলেন সুলতান। সেই সুবাধে তিনি ইউনিয়ন পরিষদেও বসতেন। যুদ্ধকালীন সময় এই দপদপিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ভবনেই অস্ত্র আসতো। সেখান  থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে অস্ত্র বন্টন করতেন সুলতান আহম্মেদ। অস্ত্র  আসার দিন তারিখ আগেই তাকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয়া হতো। তিনি এই চিঠি পেয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে খবর পৌছে দিতেন।

সুলতান আহম্মেদ জানান, বরিশাল ও আটগড় থেকে নৌকায় অস্ত্র আসতো এখানে। নৌকার উপরে থাকতো তরকারী ও সবজীর স্তুপ। নিচে থাকতো অস্ত্র। সুলতান আহম্মেদ এখান থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে অস্ত্র বন্টন করতেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতে ট্রেনিয়য়েও পাঠাতেন তিনি। এই গ্রামের অনেককেই তিনি ভারতে পাঠিয়েছেন প্রশিক্ষনের জন্য।

সুলতান আহম্মেদ জানান, কুমারখালির চৌদ্দপুড়িয়া গ্রামে রাতে মুক্তিযোদ্ধাদের সমবেত করে সেখান থেকে ট্রেনিংয়ের জন্য আমি ভারতে পাঠাতাম। এই এলাকার মুক্তিযোদ্ধা মতিন গাজী বলেন, আমিসহ আরো অনেককে সুলতান ভাই ভারতে
পাঠিয়েছেন ট্রেনিংয়ের জন্য। সুলতান আহম্মেদ বলেন, মুক্তিযোদ্ধা গৌরঙ্গ আমার কাছে অস্ত্র আসার খবর পৌছে দিত, আমি আবার মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে খবর পৌছে দিতাম।

তিনি বলেন আমি ক্যাপ্টেন ওমরের (শাহজাহান ওমর) তত্তাবধানে যুদ্ধে এ দায়িত্ব পালন করেছি। এছাড়া দপদপিয়ার আনোয়ার হোসেন, ভরতকাঠির দেলোয়ার হোসেন, গোয়ানকাঠির আবদুস সালাম, দুধলিয়ার শাহজাহান মোল্লা ও চান মিয়া,দপদফিয়ার আতাহার ও মোতালেব গাজী এবং কয়ারচরের লতিফ গাজী সহ আরো অনেকে আমার যুদ্ধকালীন সহকর্মী ছিলেন।

সুলতান আহম্মেদ বলেন, আমার অলসতার কারনেই আসলে আমি সনদ পাইনি। ক্যাপ্টেন শাহজাহান ওমর আমাকে বার বার সনদ নিয়ে রাখার জন্য বললেও আমিতখন বিষয়টিকে গুরুত্ব দেইনি। কিন্তু এখন ছেলে মেয়ের জন্য এই সনদ জরুরী হয়ে পড়ছে। তাছাড়া মুক্তিযুদ্ধ করলাম, তারতো একটা অফিসিয়াল ডকুমেন্ট থাকা দরকার। এখন আমার বয়স বেড়ে গেছে, ঠিকমত চলা ফেরা করতে পারিনা। এখন আমি সনদের জন্য আবেদন করবো। আমি আশা করি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়া দল আওয়ামীল সরকার আমার এই আবেদন মঞ্জুর করবেন।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এফএইচ/mmh


আরও সংবাদ   বিষয়:  সংগ্রাম পরিষদ   মুক্তিযোদ্ধা সুলতান আহম্মেদ  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. আবদুস সবুর মিঞা (অব.)
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft