ঢাকা, বাংলাদেশ || সোমবার, ১ জুন ২০২০ || ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ স্ত্রী-পুত্রসহ আক্রান্ত নজরুল ইসলাম মজুমদার ■ আগামি ১ মাসে আক্রান্ত হবে দেশের ৮০ ভাগ মানুষ ■ ধেয়ে আসছে আরেক ঘূর্ণিঝড় ■ ফল ভাল করেও পছন্দের কলেজে ভর্তি অনিশ্চিত ■ জুলাইয়ে খুলছে মালয়েশিয়ার শ্রম বাজার ■ স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চে চলাচল করতে হবে ■ উবার-পাঠাওসহ সব রাইড শেয়ারিং সেবা বন্ধ ■ মাস্ক না পরলে ১ লাখ টাকা জরিমানা, ৬ মাসের জেল ■ জুন মাস পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিলের বিলম্ব মাশুল নেয়া হবে না ■ ঢাকার বাইরে যাওয়াদের সংসদে প্রবেশ বারণ ■ যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ অব্যাহত, সাংবাদিক গ্রেপ্তারে ক্ষমা প্রার্থনা ■ শেয়ারবাজারে লেনদেন চালু, সূচকের বড় উত্থান
করোনায় মৃত একটি লাশ দাফনের হৃদয়স্পর্শী গল্প
দেশসংবাদ ডেস্ক
Published : Monday, 6 April, 2020 at 10:24 AM, Update: 07.04.2020 9:50:42 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

করোনায় মৃত একটি লাশ দাফনের হৃদয়স্পর্শী গল্প

করোনায় মৃত একটি লাশ দাফনের হৃদয়স্পর্শী গল্প

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। মৃত ব্যক্তির লাশ নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে মানুষ। আতঙ্কিত হওয়ারই কথা, কেননা এটি একটি সংক্রামক ব্যাধি। ফলে ইচ্ছা থাকলেও কাছে যাওয়ার সাহস হয়ে উঠে না।

করোনায় মৃতদের লাশ নিয়ে প্রতিদিন ঘটছে নানা হৃদয়স্পর্শী ঘটনা। এমন ঘটনা ঘটল বৃটেনের ব্রিক্সটন শহরেও। খুব সতর্কতার সঙ্গে নামানো হল, যেন কারো শরীরে স্পর্শ না লাগে। তারপর জানাজা। কমপক্ষে এক মিটার করে দূরত্বে দাঁড়িয়ে ১৫ জনের মতো মানুষ। তারা জানাজা পড়ালেন মৃত ইসমাইল মোহাম্মদ আবুদুল ওয়াহাবের। তারপর লাশ নেওয়া হল কবরের কাছে। কেউ হাত দিয়ে কফিন ধরলেন না। কফিনের কাছে গেলেন ৫ জন।

তার মধ্যে তিনজন সাদা পিপিই পরা। অন্যরা অন্য রঙের। দু’জন কফিনের সামনে কফিনের কাঠের নিচ দিয়ে রশি প্রবেশ করিয়ে দিলেন। অন্য দু’জন পিছন দিকে একই পদ্ধতিতে রশি লাগিয়ে দিলেন। চারজন রশির সাহায্যে কফিনটি আলগা করে তুললেন। রশির সাহায্যেই তা কবরে নামিয়ে দিলেন। এরপর শেষ করলেন দাফন অনুষ্ঠান। এতে লাশকে মোটেও হাতের স্পর্শ দিতে হয়নি।

ইসমাইলের এই দাফন বাড়িতে বসে এ দৃশ্য অনলাইনে লাইভ দেখছিলেন ইসমাইলের মা ও অন্য ৬ ভাইবোন। তারা ইসমাইলের দাফন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পর্যন্ত না পারায় হাউমাউ করে কাঁদছেন। তাদেরও করোনা ভাইরাসের লক্ষণ দেখা দিয়েছে। তাই কোয়ারেন্টাইনে ঘরের ভিতর।

বৃটেনে এ যাবত যত মানুষ মারা গিয়েছেন তার মধ্যে ইসমাইলই সবচেয়ে কম বয়সী। তার বয়স মাত্র ১৩ বছর। সে সোমবার একটি হাসপাতালে মারা গেছে। তাকে দাফন করা হয়েছে শুক্রবার বিকালে। এ সময় সেখানে যেসব শোকার্ত মানুষ উপস্থিত ছিলেন তাদেরকে পরস্পর থেকে দুই মিটার দূরত্বে থাকতে বাধ্য করা হয়। তারা যাতে নিরাপদ থাকেন এ জন্য দেয়া হয় নিরাপত্তামুলক পোশাক, গ্লোভস এবং মাস্ক। তারা যে পদ্ধতিতে ইসমাইলকে কবরে নামিয়ে দাফন শেষ করেছেন তা শুধু অনলাইন তার মা ও ৬ ভাইবোন প্রত্যক্ষ করেছে। দক্ষিণ লন্ডনের ব্রিক্সটনে সোমবার দিনের প্রথম ভাগে কিংস কলেজ হাসপাতালে একা একাই মরে পড়ে থাকে ইসমাইল।

এরপর তাকে চিসলেহার্স্টে এটারনাল গার্ডেনস মুসলিম বারিয়াল গ্রাউন্ডে দাফন করা হয়। এতে শোকার্ত স্বজনের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তার দুই চাচা ও কাজিনরা। তাদেরকে দেয়া হয়েছিল পিপিই পোশাক। সবাইকে জানাজার সময় কমপক্ষে দুই মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে বাধ্য করা হয়। জানাজা পড়ান কবরস্তানের একজন হুজুর। তারপর রশির সাহায্যে যখন ইসমাইলকে অন্ধকার মাটির প্রকোষ্ঠে নামিয়ে দেয়া হতে থাকে, তারা সেখানে দাঁড়িয়ে বুক ভরা ব্যথা নিয়ে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে শুধু তা প্রত্যক্ষ করেন।

বৃটেনে ভয়াবহ করোনাভাইরাস এভাবেই একের পর এক মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। এসব মৃত মানুষকে স্বজনরা পর্যন্ত স্পর্শ করতে পারছেন না। প্রিয়জনের দাফন এতটা আতঙ্কিত পরিবেশে হবে এমনটা কেউ কল্পনাও করতে পারেনি। বলা হয়েছে, ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে শতকরা ৬০ ভাগেরও বেশি মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। তবে তরুণ, শিশু বা কিশোর বয়সীদের মধ্যেও এমন বিয়োগবিধূর মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। সর্বশেষ বেশ কয়েকজন তরুণ মারা গেছেন করোনাভাইরাসে। এর মধ্যে রয়েছেন দু’জন নার্স।

সম্প্রতি এমন বেশ কয়েকজন যুবক-যুবতী মারা গেছেন করোনাভাইরাসে। তার মধ্যে রয়েছে ১৯ বছর বয়সী শেফ লুকা ডি নিকোলা, ৩৩ বছল বয়সী ফার্মাসিস্ট পুজা শর্মা, ২৮ বছর বয়সী পেইন্টার ও ডেকোরেটর এডাম হারকিনস সুলিভান প্রমুখ।

ইসমাইলের বাবা পাঁচ বছর আগে ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে মারা গেছেন। ইসমাইলের মা সাদিয়া তার ৭ সন্তানকে নিয়ে বসবাস করছিলেন। কিন্তু শেষবারের জন্য নিজ হাতে সন্তানের লাশটাও স্পর্শ করতে পারলেন না। একদিকে সন্তান হারানোর বেদনা, তার সঙ্গে সেই সন্তানের লাশ স্পর্শ করতে না পারা- এই দুই কষ্টে তিনি পাথর হয়ে গেছেন। তাকে বাধ্য করা হয়েছে অনলাইনে দাফন অনুষ্ঠান দেখতে।

ডেইলি মেইল লিখেছে, ইসলামী রীতিতে মৃতদেহকে প্রথমে মসজিদে নেওয়া হয় জানাজার জন্য। কিন্তু বর্তমানে সব মসজিদ বন্ধ। তাই ইসমাইলকে কোনও মসজিদে নেওয়া হল না। তাকে মর্গ থেকে সরাসরি নিয়ে যাওয়া হলো ওই কবরস্তানে। সেখানেই ১৫ জনের মতো মানুষ তার জানাজা পড়ালেন। তারপর লাশ নামিয়ে দিলেন কবরে। সূত্র: ডেইলি মেইল।

দেশসংবাদ/বিডি/এনকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  করোনাভাইরাস  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
আপনি কি করোনা আক্রান্ত? তাহলে যা করবেন
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up