ঢাকা, বাংলাদেশ || শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০ || ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ বাড়ি বাড়ি প্রশ্ন পাঠিয়ে প্রাথমিকের পরীক্ষার নেয়া হচ্ছে ■ এই ইনহেলার ফুসফুসে করোনা সংক্রমণ রুখে দিতে পারে ■ সেপটিক ট্যাংকে পড়ে মা-ছেলের মৃত্যু ■ ওয়াশিংটন ডিসি ধীরে ধীরে চালু হচ্ছে ■ পিসিআর ল্যাবের পরীক্ষায়ও ডা. জাফরুল্লাহর করোনা পজিটিভ ■ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বন্ধের হুমকি ■ আরও ২ ইউপি চেয়ারম্যান ও ৩ মেম্বার বরখাস্ত ■ ছুটি শেষ, ঝুঁকি নিয়েই ঢাকায় আসছে মানুষ ■ ৩১ মে থেকে লঞ্চ চলবে, বাড়বে ভাড়া ■ ১০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ একমাসের মধ্যে ■ মেয়েকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা বাবার! ■ ভারতে ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত ৬,৫৬৬, মৃত্যু ১৯৪
করোনার আঘাতে বিপাকে কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা
প্রবীর চক্রবর্তী, চাঁদপুর
Published : Thursday, 9 April, 2020 at 2:43 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

করোনার আঘাতে বিপাকে কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা

করোনার আঘাতে বিপাকে কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা

সরকারি নির্দেশনা মেনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো কিন্ডারগার্টেন গুলোও বন্ধ রয়েছে। তবে শিক্ষকরা ইতিমধ্যেই মার্চ মাসের বেতন পাওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। কিন্তু বিপাকে রয়েছে কিন্ডারগার্টেন গুলোর শিক্ষকরা । নামমাত্র বেতনে চাকুরি করা এসব শিক্ষক অনেকেই এখন অর্ধহারে দিন কাটাচ্ছে। এই চরম দুসময়ে তাদের দিকে তাকানো কেউ নেই। পুরো দেশের লক্ষ লক্ষ শিক্ষকদের চিত্র এটি।

জানা গেছে, গতানুগতিক ধারা বাইরে গিয়ে আদর ও স্নেহের মাধ্যমে আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কিন্ডারগার্টেন গুলো যাত্রা শুরু করে। তাদের পাঠদান পদ্ধতি ও আধুনিকতা পুরো শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে বিপ্ল সাধন করে। এক সময়ের ঢিলে ঢালা ভাবে চলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোকে আড়মোড়া ভেঙ্গে উঠে দাড়াতে বাধ্য করে। এক সময়ে শহরাঞ্চলে কিন্ডারগার্টেন গুলো থাকলেও এখন তা জালের মতো পুরো দেশে ছড়িয়ে গেছে। প্রত্যন্ত জনপদে এগুলোর অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়। কিন্ত এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে যারা চাকুরি করছেন তাদের নামমাত্র বেতন পেতেন। এই বেতন দিয়ে না চললেও প্রাইভেট পড়ানোর মাধ্যমে তারা তাদের সংসার চালিয়ে নিতো। সরকার শিক্ষাব্যবস্থার নতুন এই ধারার সাথে তাল মিলিয়ে সরকার ইতিমধ্যেই এসব প্রতিষ্ঠানকে বিনামূল্যে বই  দিয়ে তাদেরকে সরকারি কারিকুলামে চলার জন্য নির্দেশনা দিয়েছে।

সেই ধারা মেনে ইতিমধ্যেই সরকারের সকল কার্যক্রমে অংশ গ্রহণ করছে কিন্ডারগার্টেন গুলো। সর্বশেষ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গত ১৭ মার্চ থেকে এই প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রয়েছে। শিশুদের সুরক্ষার কারণে অভিভাবকরাও বন্ধ রেখের প্রাইভেট । ফলে অসহায় হয়ে পড়েছে এই সেক্টরে কর্মরত ১০ লক্ষাধিক শিক্ষক। এর সাথে রয়েছে বিপুল সংখ্যক কর্মচারী।

 কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সাথে কলা বলে জানা গেছে, সরকারি ঘোষনার কারণে হঠাৎ করেই কিন্ডারগার্টেন গুলো মাসের অর্ধেক সময়ে বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে, তারা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে পাওয়া মাসিক টিউশন ফি সংগ্রহ করতে পারেন নি। ফলে মার্চ মাস চলে গেলে অনেক প্রতিষ্ঠানই তাদের শিক্ষকদের বেতন দিতে সক্ষম হয়নি। এমনকি অনেক প্রতিষ্ঠানই ফেব্রয়ারী মাসের বেতন পর্যন্ত দিতে পারেন নি। ফলে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়শেন সাধারণ সম্পাদক মাও. জাকির হোসনে বলেন, আমাদের শিক্ষকরা চরম দু:সময়ে দিন কাটাচ্ছি। আমাদের কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা দেশের এই দু:সময়ে চরম অবহেলিত। তারা কারো কাছ থেকেই কোনরকম সহযোগিতা পাচ্ছে না। সরকারের উচিত তাদের পাশে দাড়ানো। কারণ এরা লজ্জায় কারো কাছে সাহায্য চাইতে পারছে না।
 
এ ব্যাপারে চাঁদপুর জেলা কিন্ডারগার্টেন ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়েশনের সভাপতি সেলিম হোসেন জানান, পুরো জেলায় প্রায় ৫শতাধিক কিন্ডার গার্টেন রয়েছে। এদের প্রায় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানই ফেব্রুয়ারী মাসের সম্মানি শিক্ষকদের দিতে পারেন নি। মার্চের শেষের দিকে ত্রৈসাসিক পরীক্ষা যদি হতো তাহলে আদায়কৃত টিউশন ফি দিয়ে শিক্ষকদের সম্মানি দেয়া সম্ভব হতো। এছাড়া শিক্ষকরা অনেকেই ভ্যক্তিগত ভাবে টিউশনি করে সংসার চালায়। বর্তমানে তাও বন্ধ রয়েছে। এমতাবস্থায় তারা অন্ধকারে নিমজ্জিত।

একই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান জানায়, তিনি তার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ফেব্রয়ারী মাসের সম্মানি দিতে পারলেও অনেকেই তা পারেন নি।

কুমিল্লা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের চাঁদপুর জেলা শাখার সাবেক সভাপতি মাজহারুল ইসলাম জানান, কিন্ডারগার্টেন শিক্ষকদের কথা কেউ ভাবে না। অথচ প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে আধুনিকি করণে এদের অবদান শতভাগ।

একটি কেজি স্কুলের মাসিক আয় বিদ্যালয়ের ঘর ভাড়া শিক্ষক শিক্ষিকাদের সম্মানি ও  কর্মচারীর বেতন বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস ও পানির বিল সহ অন্যান্য খরচ এ সব চলে যায়। যা সরকারের যথাযত কর্তৃপক্ষের বরাবরে হিসেব দেখানোর প্রয়োজনীতা আছে এবং অনুমোদিত স্কুলের পক্ষ থেকে হিসেব জমাদান ও করা হয়ে থাকে। বর্তমানে এসব প্রতিষ্ঠানের আয় তথা টিউশন ফি পাওয়া বন্ধ।  তাই এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষিকা এবং কর্মচারীদের কথা চিন্তা করে আর্থিক প্রণোদনা দিলে উপকৃত হবে দেশের শিক্ষক সমাজ এমনটাই দাবী তাদের।
 
দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  কিন্ডারগার্টেন   শিক্ষক  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
টিকা না আসা পর্যন্ত করোনাকে সঙ্গী করেই বাঁচতে হবে
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up