ঢাকা, বাংলাদেশ || বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই ২০২০ || ২৫ আষাঢ় ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ ঘাতক ময়ূর-২ লঞ্চের মালিক গ্রেফতার ■ চট্টগ্রামে নতুন করে আক্রান্ত ২৫৯ জন ■ করোনার ছোবলে দিশেহারা শিক্ষক-কর্মচারী ■ ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে হার্ভার্ড ও এমআইটির মামলা ■ ১৪ দলের দায়িত্ব নিয়ে যা বললেন আমু ■ মাস্ক-পিপিই দুর্নীতি খতিয়ে দেখছে দুদক ■ পদ্মা সেতুর পিলারের গোড়ার মাটি সরে যাওয়ার ঝুঁকি! ■ হিফজ মাদ্রাসা খোলার অনুমতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি ■ বাতাসের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর প্রমাণ! ■ একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রে ■ ঈদে বর্ধিত বোনাসই পাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ■ ১২৫ বাংলাদেশিকে বিমান থেকে নামতে দিচ্ছে না ইতালি
করোনায় আক্রান্ত দুই শতাধিক ব্যাংকার, মৃত্যু ১৪
দেশসংবাদ ডেস্ক
Published : Saturday, 6 June, 2020 at 8:51 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

করোনাভাইরাস

করোনাভাইরাস

ব্যাংকগুলোতে প্রতিনিয়তই বাড়ছে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা। এ পর্যন্ত প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন দুই শতাধিক ব্যাংক কর্মী। মারা গেছেন ১৪ জন ব্যাংকার। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের কর্মীরা। প্রাণঘাতী ভাইরাসে ব্যাংকটিতে এ পর্যন্ত ১০৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। প্রাণ গেছে তিনজনের। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক, যেখানে আক্রান্ত হয়েছেন অর্ধশতাধিক কর্মকর্তা। সংশ্লিষ্ট ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যাংকগুলোতে কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের হার প্রতিদিনই বাড়ছে। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও অনেক ব্যাংক যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। নিরাপত্তাহীনতায় চলছে। মানছে না নিয়মকানুন। সামাজিক দূরত্ব বজায়ের বালাই নেই। গাদাগাদি করে অফিস করা, লিফটে ওঠা, অধিক লোক সমাগমের কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছেন ব্যাংকাররা। তাই দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি। একই সঙ্গে ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে অধিক কর্মী সমাগম ঠেকাতে পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব বণ্টন বা রোস্টারিং চালু দাবি করছেন ব্যাংক কর্মকর্তারা।

ব্যাংকগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত ব্যাংকার আক্রান্তের সংখ্যা দুই শতাধিক। মারা গেছেন ১৪ জন ব্যাংকার। মৃতদের মধ্যে সোনালী ব্যাংকের তিনজন, রূপালী ব্যাংকের দুজন, দি সিটি ব্যাংকের দুজন, এনসিসি ব্যাংকের চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার একজন, উত্তরা ব্যাংকের শান্তিনগর শাখার একজন, জনতা ব্যাংকের লোকাল অফিসের প্রশাসন শাখার একজন, ন্যাশনাল ব্যাংকের একজন, অগ্রণী ব্যাংকের একজন ও ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ইমামগঞ্জ শাখার একজন। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের পরিচালক।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া কর্মকর্তারা হলেন— সোনালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার (পিও) মাহবুব এলাহীও দুজন। তবে বাকি দুজনের নাম জানা যায়নি। রূপালী ব্যাংকের কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম খান এবং মিজানুর রহমান। জনতা ব্যাংকের লোকাল অফিসের প্রশাসন শাখার এক্সিকিউটিভ অফিসার হাসিবুর রহমান, সিটি ব্যাংকের মানবসম্পদ বিভাগের মুজতবা শাহরিয়ার এবং অ্যাসিসটেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদের আবু সাঈদ। এনসিসি ব্যাংকের চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার অ্যাসিসটেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট জামশেদ হায়দার চৌধুরী, উত্তরা ব্যাংকের শান্তিনগর শাখার কর্মকর্তা ওয়াহিদ মর্তুজা, ন্যাশনাল ব্যাংকের এসএভিপি মো. বাশার, অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা মো আব্দুল মালেক, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ইমামগঞ্জ শাখার ক্যাশ ইনচার্জ মো. মনিরুজ্জামান। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দেশের অন্যতম শিল্পপতি এস আলম গ্রুপ ও এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের পরিচালক মোরশেদ আলম।

এদিকে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম ব্যবস্থাপক আশরাফ আলী।

করোনায় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক। দেশের এ ব্যাংকটিতে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যাও বেশি। এ পর্যন্ত ব্যাংকটির ১০৩ জন কর্মকর্তা আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুবরণ করেছেন তিনজন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান প্রধান।

ব্যাংকগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শারীরিক দূরত্ব মানার জন্য ব্যাংকের কর্মকর্তাদের আসন বিন্যাসে তেমন কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। ব্যাংকগুলোতে রোস্টার পদ্ধতি করা হলেও তা মানা হচ্ছে না। ব্যাংকের নিয়ন্ত্রক সংস্থা কেন্দ্রীয় ব্যাংকেও একই অবস্থা বলে জানা গেছে। করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে কর্মীদের সাপ্তাহিক ও পাক্ষিক ভিত্তিতে রোস্টারিং ডিউটির ব্যবস্থার দাবি জানায় বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ ব্যাংক অফিসার্স ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল।

পরবর্তীতে গত ৪ জুন কর্মীদের জন্য একটি অফিস আদেশ জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের সব বিভাগীয় প্রধান এবং শাখা অফিসের প্রধান নির্বাহী বা মহাব্যবস্থাপক অফিসের কাজের গুরুত্ব বিবেচনায় ও বাস্তবতার নিরিখে সুষ্ঠুভাবে অফিস পরিচালনার নিমিত্তে পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব বণ্টন বা রোস্টারিং করতে পারবেন। যেসব কর্মকর্তা বাসায় অবস্থান করবেন, তাদের বাসা থেকে নিজেদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। কেউই কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারবেন না। এ সময় যেসব কর্মকর্তা অফিসে এসে কাজ করবেন তাদের দুপুরের খাবার দেয়া হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনার বিস্তার রোধে ইতিমধ্যে বেসরকারি প্রাইম ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ও সাউথইস্ট ব্যাংকসহ বেশ কয়েকটি ব্যাংক পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব বণ্টনসহ বাসায় বসে কর্মকর্তাদের কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন। অন্যান্য বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তাও রোস্টারিং সুবিধা চালুর দাবি করছে।

প্রাইম ব্যাংকে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা কার্যক্রম সম্পর্কে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাহেল আহমেদ বলেন, গ্রাহক ও কর্মকর্তাদের সুস্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তায় প্রাইম ব্যাংক সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। এজন্যই আমরা এই মহামারির শুরু থেকেই স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার জন্য ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করি। সাধারণ ছুটি শেষ হওয়ার পর যখন আমাদের সব শাখা কার্যক্রম শুরু করেছে, তখন আমরা এই স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা কার্যক্রমের পরিধি এবং ব্যাপকতা আরও বাড়িয়েছি।

দেশসংবাদ/জেএন/এনকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  করোনাভাইরাস  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
চট্টগ্রামে নতুন করে আক্রান্ত ২৫৯ জন
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up