ঢাকা, বাংলাদেশ || বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ || ৮ আশ্বিন ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়ে গেছে ■ কে হচ্ছেন বিএনপি’র নতুন মহাসচিব? ■ বাংলাদেশিদের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে সৌদিকে চিঠি ■ কাশ্মীর নিয়ে জাতিসংঘে এরদোগানের উত্তপ্ত বক্তব্য ■ ক্রমেই স্বাভাবিক হচ্ছে হাটহাজারী মাদ্রাসা ■ জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্র-চীন উত্তেজনা! ■ জেনারেল সারওয়ার্দীসহ ৪০ জনের ব্যাংক হিসাব তলব ■ করোনায় আরো সাড়ে ৫ হাজার মানুষের মৃত্যু ■ জাহালম কাণ্ড নিয়ে ২৯ সেপ্টেম্বর রায় ■ আজও সৌদি প্রবাসীদের বিক্ষোভ চলছে ■ এবার ‘টুইনডেমিক’ আতঙ্কে যুক্তরাষ্ট্র ■ ওমরাহ পালনে খুলছে পবিত্র কাবা ঘর
প্রার্থিতা বাতিলের ক্ষমতা বাদ দিচ্ছে না ইসি
দেশসংবাদ, ঢাকা
Published : Monday, 31 August, 2020 at 10:45 PM, Update: 01.09.2020 9:42:51 AM
Zoom In Zoom Out Original Text

নির্বাচন কমিশন

নির্বাচন কমিশন

প্রার্থিতা বাতিলের যে ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) দেওয়া হয়েছে, সেটা গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও)-১৯৭২ থেকে বাদ দেওয়া হচ্ছে না। এমনকি আরপিও থেকে কোনো মৌলিক বিষয়ই বাদ যাচ্ছে না। নির্বাচন কমিশন ভবনে বৈঠক শেষে সোমবার (৩১ আগস্ট) সন্ধ্যায় ইসি সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

আরপিওকে বাংলা আইনে রূপান্তর করার খসড়ায় প্রার্থিতা বাতিলের ক্ষমতা বাদ দেওয়াসহ অর্থাৎ আরপিওর ৯১(ই) ধারাসহ ১০টি মৌলিক বিষয় তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল নির্বাচন কমিশন। যেই বিষয়গুলো আইনের বিধিমালায় যুক্ত করতে চেয়েছিল ইসি।

নির্বাচন কমিশন কেন নিজের ক্ষমতা নিজেই বাদ দিতে চাইছে, এমন প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, নিজের ক্ষমতা নিজে ছাড় দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কমিশনের কোনো ক্ষমতাই খর্ব করা নয়, বরং যা আছে মৌলিক, তার সবই ঠিক থাকবে। আইনের (আরপিও) মৌলিক কোনো পরিবর্তন হচ্ছে না, শুধু বাংলায় করা হচ্ছে। এটিকে আইনেও রূপান্তর করা হচ্ছে না।

তিনি বলেন, আরপিওটি অনেক বড় আইন। এটাকে ছোট করার প্রস্তাব এসেছে। এজন্য বলা হয় যে, যেটি আইনে দরকার নেই, সেটি বিধিমালায় যাবে। অনেক কথা লেখা ছিল তা আইনের সঙ্গে যায় না। স্বাধীনতার পরে ১৯৭২ সালে যখন আইনটি করা হয়েছিল, সেই সময় বিধিমালা করা অনেক সময় সাপেক্ষ বিষয় ছিল। আরেকটা বিষয় আপানারা জানেন যে, আইন সহজে পরিবর্তন করা যায় না। এজন্য সরকার বা নীতি নির্ধারকদের ক্ষেত্রে যে নির্দেশনা রয়েছে, তা হলো-আইন যখন করবেন, তার প্রসিডিউরগুলো বিধিতে রাখবেন।

মো. আলমগীর বলেন, প্রার্থিতা বাতিলের ক্ষমতা বিধিতে রাখতে গিয়ে হয়তো কমিশন আইন থেকে ভুল করে হোক বা বোঝাপড়ার মাধ্যমে হোক সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, এটা আইনে থাকবে না, বিধিতে যাবে। আর আইন মন্ত্রণালয় বলেছে যে, এটা কোর্টের বিষয়। আর কোর্টের বিষয় বিধিতে রাখা যায় না। তারা নয় দশটা বিষয় আইনেই রাখতে বলেছে।

তিনি বলেন, কমিশনের প্রস্তাব অনুযায়ী, আইনে না থাকলেও বিধিতে রাখা হতো। যেহেতু আইন মন্ত্রণালয় আইনেই রাখতে বলেছে এটাকে শক্তিশালী রাখার জন্য, তাই আইনেই রাখা হচ্ছে।

আরপিওর ৯১(ই) ধারায় বলা হয়েছে- নির্বাচনে অবৈধ বা আইন পরিপন্থী কোনো কাজ প্রার্থী বা তার এজেন্ট বা তার পক্ষে অন্য যে কোনো ব্যক্তি জড়িত রয়েছে বলে কমিশনের দৃষ্টিগোচর হয় বা অভিযোগ আসে, তবে কমিশন তা তদন্ত করার জন্য নির্দেশ দিতে পারবে। তদন্তে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে, তবে সেই প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করতে পারবে নির্বাচন কমিশন।

দেশসংবাদ/বিএন/এসআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  নির্বাচন কমিশন   আরপিও  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়ে গেছে
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এফ. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : এম. এ হান্নান
যুগ্ম-সম্পাদক : মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up