ঢাকা, বাংলাদেশ || শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১ || ৩ মাঘ ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ অত্যাধুনিক মারণাস্ত্র হাতে হাজার হাজার সেনা ■ ভারতে বিশ্বের সর্ববৃহৎ টিকাদান কর্মসূচি শুরু ■ নির্বাচন কমিশন গঠনে বিএনপি’র সর্বদলীয় ঐক্যের উদ্যোগ ■ ধসে পড়ছে ট্রাম্পের বাণিজ্য সাম্রাজ্য ■ ২০২১ সালের গ্লোবাল সামরিক র‍্যাংকিং প্রকাশ ■ ৬০ পৌরসভায় ভোট চলছে ■ সেভেন স্টার গ্রুপের ৬ সদস্য গ্রেফতার ■ প্রতিপক্ষের কর্মীকে কোপালেন নারীপ্রার্থী ■ জনপ্রিয় তুর্কি অ্যাপ ‘বিপ’ ডাউনলোডের হিড়িক ■ ৫২ পৌরসভায় বিএনপি’র টিকিট পেলেন যারা ■ ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ল ■ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৩ মৃত্যু, আক্রান্ত ৭৬২
কানাডার সেই আলোচিত বেগমপাড়া কোথায়?
ড. মঞ্জুরে খোদা
Published : Friday, 27 November, 2020 at 3:53 PM, Update: 27.11.2020 7:05:35 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

কানাডার সেই আলোচিত বেগমপাড়া কোথায়?

কানাডার সেই আলোচিত বেগমপাড়া কোথায়?

বাংলাদেশের অসৎ-দুর্নীতিবাজ ব্যবসায়ী-আমলা-রাজনীতিকদের পরিবার কানাডার যেসব স্থানে বাসা-বাড়ি কিনে বসবাস করে সেসব স্থানকে কানাডার বাঙালিরা ‘বেগমপাড়া’ বলে অভিহিত করে। কানাডায় আসলে সুনির্দিষ্টভাবে ‘বেগমপাড়া’ বলে কোনো জায়গা নেই। ‘বেগমপাড়া’ হচ্ছে বাংলাদেশের লুটেরা-দুর্নীতিবাজদের দ্বিতীয় আবাসভূমির প্রতীকী নাম। বিপুল সম্পদের মালিক হয়ে তাদের পরিবার এখানে আয়েশি, নিরাপদ ও বিলাসবহুল জীবন যাপন করে।

কীভাবে এলো বেগমপাড়ার ধারণা?


অন্টারিওর একটি ব্যয়বহুল ও অভিজাত ছোট শহর মিসেসাওগা। কানাডার বিখ্যাত লেক অন্টারিওর তীর ঘেঁষে টরেন্টো শহরের পাশে এটি অবস্থিত। এ শহরের একটি বড় কনডোমিনিয়ামে দক্ষিণ এশিয়া থেকে আসা বহু অভিবাসী পরিবার বাস করে। এসব পরিবারের কর্তারা কাজকর্ম করেন মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে। আর স্বামীদের অনুপস্থিতিতে স্ত্রীদের নিঃসঙ্গ ও কঠিন জীবনসংগ্রাম নিয়ে ভারতীয় পরিচালক রশ্মি লাম্বা একটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করেন, যার নাম ছিল ‘বেগমপুরা’। সেই ‘বেগমপুরা’ থেকেই ‘বেগমপাড়া’ নামটি এসেছে। বেগমপুরা থেকে বেগমপাড়া হলেও কাহিনি বিপরীত!

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে উচ্চবেতনে কাজ করা ভারত ও পাকিস্তানের নাগরিকরা জীবনের একসময় পরিবার নিয়ে অভিবাসী হয়ে কানাডায় চলে আসে। কিন্তু কানাডায় এসে তারা তাদের পেশাগত যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ না পেয়ে কানাডায় পরিবার রেখে ফের মধ্যপ্রাচ্যেই চলে যায়। সেখান থেকে অধিক আয়ের অংশ তাদের পরিবারের ভরণপোষণের জন্য পাঠায়। আর তাদের স্ত্রীরা স্বামীর অনুপস্থিতিতে একাই কঠিন সংগ্রাম ও পরিশ্রমের মাধ্যমে সন্তান ও পরিবার সামলায়। তার মানে বেগমপুরার কাহিনি ছিল অনেক সংগ্রামের ও চ্যালেঞ্জের। আর বাংলাদেশের কথিত বেগমপাড়ার কাহিনি তার বিপরীত। বাংলাদেশের বেগমদের সাহেবরা দেশে চাকরি, ব্যবস্যা-বাণিজ্য, রাজনীতি করে দুর্নীতি ও লুটপাটের মাধ্যমে অর্জিত অবৈধ আয় কানাডায় পাচার করে তাদের বেগমদের কাছে পাঠায়। আর তাদের বেগমরা-সন্তানরা এখানে অভিজাত এলাকার দামি বাসা-বাড়ি-গাড়িতে বিলাসবহুল আয়েশি জীবন যাপন করে।

সেই প্রতীকী বেগম পাড়াগুলো কোথায়?


বেগমপাড়া বলে বাস্তবে কানাডায় কোনো পাড়া-মহল্লা, এলাকা না থাকলেও এখানে এমন কিছু জায়গা আছে, যেখানে অসৎ-দুর্নীতিবাজ বাংলাদেশিরা বসতি গেড়েছে। কোথায় সেসব? সাধারণত যেসব এলাকায় বাংলাদেশিদের আনাগোনা নেই, স্থানীয় প্রবাসী পেশাজীবীরা বসবাস করে না, সেসব এলাকাকেই তারা বেছে নিয়েছে বসবাসের জন্য। এবং সেসব এলাকাতেই বাসা-বাড়ি, অ্যাপার্টমেন্ট কিনে বসবাস করছে। যে স্থানগুলোকে এখানকার অভিজাত এলাকা হিসেবে অভিহিত করা হয়। জানা যায়, টরেন্টোর বেলভিউতে বিলাসবহুল হাইরাইজ কনডোমিনিয়াম, টরেন্টোর প্রাণকেন্দ্র সি এন টাওয়ারের আশপাশ, টরেন্টোর পাশের শহর রিচমন্ড হিল, মিসেসাওগা ও মার্কহামের অভিজাত এলাকায় এরা বাস করে। অন্টারিওতে এমন ২ শতাধিক বেগমপাড়ার কথা শোনা যায়। এ ছাড়া আরও অনেকে কানাডার অভিবাসী হয়ে বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়েছে।

কী করে এই বেগমরা?

অভিজাত এলাকার এই বেগমসাহেবারা এখানে কোনো কাজকর্ম করে না, কিন্তু তারা দু-চার-পাঁচ মিলিয়ন ডলারের বাড়ির মালিক। তারা এখানে থাকে কিন্তু তাদের জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে দৃশ্যমান জীবনযাপনের কোনো মিল নেই। কানাডায় থাকা সাধারণ প্রবাসীদের পক্ষে সহজে এমন বাড়ি কেনা সম্ভব নয়। তাদের এ রকম একটি বাড়ি কিনতে অনেক মেহনত করতে হয়। স্বামী-স্ত্রী ভালো চাকরি-ব্যবসা করে তবেই চিন্তা করতে পারে এমন বাড়ির কথা। যে কারণে কানাডাপ্রবাসী বাংলাদেশিদের সহজেই ধারণা হয়, তাদের এ সম্পদ তারা এখানকার আয় দিয়ে করেনি। বাংলাদেশ থেকে তারা অসদুপায়ে আয় করে অবৈধভাবে নিয়ে এসেছে।

কেন বেগমপাড়া এত আলোচিত?

কানাডাই একমাত্র দেশ যেখানে দেশপ্রেমিক প্রবাসীরা লুটেরাদের বিরুদ্ধে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। যে সংবাদ দেশের সব মিডিয়ায় গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হয়। যে আন্দোলন দেশ-বিদেশের বাঙালিদের দ্বারা ব্যাপক প্রশংসিত হয়। মানুষের মধ্যে অনেক উৎসাহের সৃষ্টি করে। অন্যান্য দেশের প্রবাসীরা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের ওখানেও এমন সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য। বিশেষত কানাডা ছাড়া যেসব দেশে লুটেরারা অর্থ পাচার করে। সেটা হলে লুটেরাবিরোধী এ আন্দোলন হয়তো একটি বৈশ্বিক আন্দোলন হতো। কিন্তু দুর্ভাগ্য বিশ্বব্যাপী করোনার ভয়ঙ্কর আক্রমণ সে সম্ভাবনাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। কিন্তু লুটেরাবিরোধী আন্দোলনের আলাপ-সংগ্রাম থেমে নেই। কানাডায় বেগমপাড়া ও লুটেরাবিরোধী আন্দোলন ছিল বেগমপাড়া শব্দের ব্যাপক প্রচার ও আলোচনার বিষয়। এ আন্দোলনের আগে ও পরে কানাডার বেগমপাড়া নিয়ে মিডিয়ায় অনেক সংবাদ, প্রতিবেদন, আলাপ-আলোচনা হয় যা এখন চলমান। যে আলোচনা দেশ-বিদেশে এক বিশাল মিথ ও কিংবদন্তি সৃষ্টি করে।

বেগমপাড়া কি শুধু কানাডাতেই আছে? না বেগমপাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আছে? বেগমপাড়ার মিথ বিবেচনায় দুনিয়ার অনেক দেশেই বেগমপাড়া বিদ্যমান। যেসব দেশে লুটেরারা দেশ থেকে অর্থসম্পদ লুট করে নিয়ে তাদের দ্বিতীয় বিলাসী ও নিরাপদ আবাস গড়ে তুলেছে, সেখানেই এ বেগমপাড়া বর্তমান। সে হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকং, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মালয়েশিয়া, কেইম্যান আইল্যান্ডস ও ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডসে বেগমপাড়া আছে। এ তথ্য বাংলাদেশ সরকার ও জিএফআইয়ের; আমার মনগড়া নয়। তথ্যসূত্র : বিবিসি বাংলা।

লেখক : গবেষক ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট।

দেশসংবাদ/বিপি/এফএইচ/এইচএন


আরও সংবাদ   বিষয়:  কানাডা   বেগমপাড়া  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
ভারতে বিশ্বের সর্ববৃহৎ টিকাদান কর্মসূচি শুরু
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : এম. এ হান্নান
যুগ্ম-সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
সেলফোন : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up