সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১ || ৬ বৈশাখ ১৪২৮
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ লকডাউনের মেয়াদ ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ল ■ স্বাস্থ্যকর্মীদের আইডি কার্ড ব্যবহার করতে হবে ■ ভারতে ২৪ ঘণ্টায় ২ লাখ ৭৩ হাজার আক্রান্ত ■ লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ■ নারায়ণগঞ্জে জামায়াতের আমিরসহ গ্রেফতার ৩ ■ সাত দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক ■ খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি ■ আদালতে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৩০ লাখ ■ নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ■ ডিবি কার্যালয়ে মামুনুল হক ■ ম্যাজিস্ট্রেট-পুলিশ-ডাক্তার তুমুল বাকবিতণ্ডা, ভিডিও ভাইরাল ■ মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা
পিলখানা হত্যাকাণ্ডের এক যুগ শেষ, মামলা ঝুলছে
দেশসংবাদ, ঢাকা
Published : Thursday, 25 February, 2021 at 10:19 AM, Update: 25.02.2021 12:24:52 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

পিলখানা হত্যা কাণ্ডের এক যুগ শেষ, মামলা ঝুলছে

পিলখানা হত্যা কাণ্ডের এক যুগ শেষ, মামলা ঝুলছে

পিলখানা ট্রাজেডির এক যুগ পূর্ণ হচ্ছে বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি)। এ ট্রাজেডির পর দীর্ঘ সময়ে হত্যা মামলাটি বিচারিক আদালত ও হাইকোর্টে শেষ হয়েছে। তবে বিস্ফোরক আইনে হওয়া মামলা এখনো ঝুলছে। রাষ্ট্রপক্ষের এক হাজার ৩৪৫ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত সাক্ষী দিয়েছেন ১৮৫ জন।

ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েশ বকশীবাজার আলীয়া মাদ্রাসা ময়দানে স্থাপিত আদালতে এ মামলার বিচারকাজ পরিচালনা করেন। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি সর্বশেষ ধার্য তারিখে পাঁচজন আদালতে সাক্ষ্য দেন। আগামী ২৩ ও ২৪ মার্চ মামলায় পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য রয়েছে।

আসামিপক্ষের অভিযোগ, দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও মামলাটি শেষ করতে যথাযথ তৎপরতা নেই রাষ্ট্রপক্ষের। তাই বিচার শেষ হতে বিলম্ব হচ্ছে। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী দাবি করেছেন, সাক্ষ্যগ্রহণ চলছে, এ বছরের মধ্যেই মামলার বিচারকাজ শেষ হবে।

২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি বিডিআরের বিদ্রোহী জওয়ানরা নারকীয় তাণ্ডব চালায় পিলখানায়। তাদের হাতে প্রাণ হারান ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন।  বিডিআর বিদ্রোহের পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি ও সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে আরেকটি তদন্ত আদালত গঠন করা হয়। দুই কমিটির প্রতিবেদনে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনার বিচার সেনা আইনে করার সুপারিশ করা হলেও উচ্চ আদালতের মতামতের পর সরকার প্রচলিত আইনেই এর বিচার করে।

বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় দুটি ফৌজদারি মামলা করা হয়। এর একটি ছিল হত্যা মামলা আর অন্যটি বিস্ফোরক আইনের মামলা। খুনের মামলায় ৮৫০ জনের বিচার শেষ হয় ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর। এতে ১৫২ জনের ফাঁসি, ১৬০ জনের যাবজ্জীবন ও ২৫৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর ২৭৮ জন খালাস পান। ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর এ মামলায় হাইকোর্টের আপিলের রায়ও হয়ে যায়।

অপরদিকে বিস্ফোরক মামলায় ৮৩৪ জন আসামি রয়েছে। মামলাটি হত্যা মামলার সঙ্গে বিচার কাজ শুরু হয়েছিল ২০১০ সালে। কিন্তু মাঝ পথে শুধু হত্যা মামলার সাক্ষ্য উপস্থাপন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। বিস্ফোরক মামলার সাক্ষ্য উপস্থাপন করেনি। একপর্যায়ে বিস্ফোরক মামলার কার্যক্রম একপ্রকার স্থগিত করে দেয় রাষ্ট্রপক্ষ। যে কারণে মামলাটির বিচারকাজ শেষ হতে বিলম্ব হয়। এ মামলায় আসামিপক্ষের অভিযোগ মামলাটি শেষ করতে রাষ্ট্রপক্ষ তৎপর নয়।  

আসামিপক্ষের অন্যতম আইনজীবী ফারুক আহাম্মদ বলেন, সাক্ষ্যগ্রহণের সংখ্যা আগের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে। তবে সেটা কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে নয়। ২৭৮ জন আসামি এ ঘটনায় হওয়া হত্যা মামলায় খালাস পেয়েছিলেন। তারা বিস্ফোরক মামলায়ও আসামি। তাই কারাগার থেকে বের হতে পারছেন না। তাই আমরা আসামি পক্ষে চাই মামলাটি দ্রুত শেষ হোক।  কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি শেষ করার ক্ষেত্রে সিরিয়াস নয়।

তবে আসামি পক্ষের এমন অভিযোগ অস্বীকার করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিন আদালত বন্ধ ছিল। আদালত খোলার পর রাষ্ট্রপক্ষে আমরা নিয়মিত সাক্ষী হাজির করছি। অভিযোগপত্রে ১ হাজার ৩৪৫ জন সাক্ষী আছেন। সবার সাক্ষী নেওয়ার প্রয়োজন হবে না। যারা সাক্ষ্য দিতে আসবেন তাদের জবানবন্দি নিয়েই বিচার শেষ করা হবে। এ বছরের মধ্যেই মামলার বিচারকাজ শেষ হবে বলে আশা করছি।

দেশসংবাদ/জেএন/এসআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  আদালত   হাইকোর্ট   বিস্ফোরক   


আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
ভারতে ২৪ ঘণ্টায় ২ লাখ ৭৩ হাজার আক্রান্ত
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : এম. এ হান্নান
যুগ্ম-সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
সেলফোন : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up