শনিবার, ৮ মে ২০২১ || ২৫ বৈশাখ ১৪২৮
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ বোমা হামলায় আহত নাশিদের অবস্থা সংকটাপন্ন ■ খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে সিদ্ধান্ত রোববার ■ ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ জনের মৃত্যু ■ দেশে করোনার ভারতীয় ধরন শনাক্ত ■ অবৈধ নিয়োগ তদন্তে রাবিতে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি ■ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরপাল্লার পরিবহন চালাতে চান মালিকরা ■ করোনায় মৃত্যুতে ভারতের রেকর্ড ■ বিশ্বে করোনা রোগী ২ কোটি ছুঁই ছুঁই ■ চীনের সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দিল ডব্লিউএইচও ■ দিনে চলবে না ফেরি, রাতে পণ্য পরিবহন ■ নামাজ পড়লেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট! ■ ভ্যাকসিন নিয়ে অবাধে চলাফেরা করা যাবে না
হাওরে আগাম বন্যার আশঙ্কায় দ্রুত ধান কর্তন
ভজন দাস, নেত্রকোনা
Published : Monday, 19 April, 2021 at 5:46 PM, Update: 19.04.2021 7:41:44 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

হাওরে আগাম বন্যার আশঙ্কায় দ্রুত ধান কর্তন

হাওরে আগাম বন্যার আশঙ্কায় দ্রুত ধান কর্তন

হাওরাঞ্চলে কৃষকদের সারা বছরের একমাত্র ফসল হচ্ছে বোরো ধান। আগাম বন্যা কিংবা প্রাকৃতিক দুর্যোগে তাদের হাড়ভাঙ্গা কষ্টে ফলানো সোনার ফসলের আর যাতে কোন ধরণের ক্ষয়-ক্ষতি না হয়, তার জন্য কৃষাণ কৃষাণীরা পাকা ধান ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছে।  

অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের আশঙ্কায় বর্তমানে নেত্রকোনার মদন,মোহনগঞ্জ ও খালিয়াজুরী হাওরাঞ্চলে দ্রুতগতিতে চলছে ধান কর্তন করে গোলায় তোলার কাজ। জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ে সার্বিক তত্ত্বাবধানে হাওরাঞ্চলে অপেক্ষাকৃত নিচু জমিতে শতাধিক কম্বাইন্ড হারভেস্টার ও কৃষি শ্রমিকদের মাধ্যমে দ্রুত গতিতে চলছে এই ধান কর্তন।

নেত্রকোনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানায়,চলতি বোরো মওসুমে নেত্রকোনা জেলায় ১ লক্ষ ৮৪ হাজার ৯ শত ৮৩ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে হাওরাঞ্চল খালিয়াজুরী উপজেলায় ২০ হাজার ১ শত হেক্টর, মদন উপজেলায় ১৭ হাজার ৩ শত ৪০ হেক্টর,মোহনগঞ্জ উপজেলায় ১৭ হাজার ৪৩ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৭ লক্ষ ৬৪ হাজার ৪ শত ৯৩ মেট্রিক টন।

সোমবার দুপুরে নেত্রকোনার মদন ও খালিয়াজুরীর হাওরাঞ্চলে কৃষকদের ধান কাটা পরিদর্শন করে তাদের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান।

এসময় জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আব্দুর রহমান বলেন,মহামারী করোনা সংকটকালে হাওরাঞ্চলের কৃষকরা যাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধান কাটেন,তার জন্য হাওর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও কৃষি কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও শ্রমিক সংকট দূর করতে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শ্রমিক আনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আশা করছি, হাওরাঞ্চলের কৃষকরা নির্বিঘ্নে তাদের পরিশ্রমের ফসল ভালভাবেই ঘরে তুলতে পারবেন।

তিনি আরো বলেন,হাওরের তিন উপজেলায় আবাদকৃত ৫৪ হাজার হেক্টর জমির ইতোমধ্যে হাওরাঞ্চলে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ ধান কর্তন সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া পর্যাপ্ত সংখ্যক শ্রমীক হারাঞ্চলের ধান কাটছেন। এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি অনুকূলে রয়েছে।

ধান কর্তন পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ হাবিবুর রহমান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এম এল সৈকত, মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ,খালিয়াজুড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম আরিফুল ইসলাম সহ জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

নেত্রকোনা জেলার মদন,মোহনগঞ্জ ও খালিয়াজুরী উপজেলার বিভিন্ন হাওরাঞ্চল ঘুরে দেখা গেছে,সর্বত্র কৃষকেরা ধান কাটা,মাড়াই ও শুকাতে ব্যস্ত সময় পার করছে। কোথাও কৃষি শ্রমিক,কোথাও আবার সরকারের ভর্তুকি দেয়া কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটা হচ্ছে। ধান কাটা ও মাড়াই নিয়ে হাওরাঞ্চলে কৃষকদের মাঝে এক ধরণের উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। কিছুদিন আগে গরম ঝড়ো বাতাস ও শিলাবৃষ্টিতে হাওরাঞ্চলে বোরো ধানের আংশিক ক্ষতি হওয়ার পরও বেশীরভাগ হাওরে ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকরা খুশি।

হাওরে আগাম বন্যার আশঙ্কায় দ্রুত ধান কর্তন

হাওরে আগাম বন্যার আশঙ্কায় দ্রুত ধান কর্তন


কৃষকরা জানায়, এপ্রিলের ১০/১২ তারিখ থেকে হাওরে ব্রি আর ২৮ ধান কাটা শুরু হয়েছে। আর এখন ব্রি আর ২৯ ধান কাটা শুরু হয়েছে। হাওরাঞ্চলে ধান কাটা শ্রমিকের তীব্র সংকট রয়েছে। অনেক কৃষক ধান কাটা, মাড়াই ও শুকাতে তাদের স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়েদেরকে যুক্ত করছেন।
 
মদন উচিতপুর হাওরে ধান কাটারত কৃষক মজিদ মিয়া জানান,গেল কয়েক বছরের চেয়ে এবার হাওরে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছিল কিন্তু গরম বাতাসে অনেক ক্ষতি হয়েছে। শেওড়াতলী গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন জানান,ধান কাটার পর জমিতেই ভেজা ধান ৮ শত ২৫ টাকা মন দরে ফড়িয়া ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছেন। মাঘান গ্রামের কৃষক কামাল মিয়া জানান, আগাম বন্যায় যাতে ধানের কোন ক্ষতি না হয় তার জন্য হারভেস্টার মেশিন দিয়ে দ্রুত জমির ধান কাটার চেষ্টা করছি।
 
মদন উপজেলার গাজীপুর গ্রামের কৃষক মামুন চৌধুরী জানান,তিনি ৮৫ কাটা জমিতে হাইব্রিড জাতের ধান আবাদ করেছেন। তিনি কাটা প্রতি ৭ থেকে ৮ মন ধান পেয়েছেন। মদন উপজেলার পরিতোষ সরকার বলেন, ফড়িয়া ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে আমরা ধানের ন্যায্য মূল্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। সরকার যদি মাঠে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান খরিদ করতো তাহলে হাওরাঞ্চলের কৃষকরা আরো বেশী লাভবান হতো।
 
নেত্রকোনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এম,এল সৈকত জানান,ইতোমধ্যে জেলার হাওর এলাকায় ফসলরক্ষা বাধেঁর নির্মাণ কাজ সম্পুর্ন হয়েছে।এরই মধ্যে অতিবৃষ্টি কিংবা আগাম বন্যা শুরু হলেও ফসলের কোন ক্ষয়ক্ষতি হবে না।

নেত্রকোনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের সময়মতো সঠিক পরামর্শ দেওয়ায় এবং আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় হাওরাঞ্চলে এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। সম্প্রতি মদন ও খালিয়াজরীতে গরম ঝড়ো হাওয়ায় হাওরাঞ্চলে ৭ হাজার ৪ শত ৪৪ হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট হয়েছে। এ ছাড়া শিলবৃষ্টিতে বারহাট্রা,কলমাকান্দা ও মোহনগঞ্জে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার হেক্টর জমির ফলন ক্ষতি হয়েছে।তারপরও আশা করছি,এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান উৎপাদিত হবে।
       
দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এফএইচ/বি


আরও সংবাদ   বিষয়:  নেত্রকোনা  


আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
২৪ ঘণ্টায় ৪৫ জনের মৃত্যু
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
সহযোগি সম্পাদক
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
এম. এ হান্নান
সহকারি সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন
০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবাইল ফোন
০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল
[email protected]
ফেসবুক
facebook.com/deshsangbad10

Developed & Maintenance by i2soft
logo
up