শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১ || ৩১ বৈশাখ ১৪২৮
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■  হেফাজত নেতাকর্মীদের মুক্তি চাইলেন বাবুনগরী ■ মুহুর্মুহু বোমা বর্ষণে ৮৩ ফিলিস্তিনি নিহত ■  চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ ■ বিত্তবানদেরকে অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ■ ২৩ মে পর্যন্ত বাড়ছে লকডাউন ■ দেশবাসীকে রাষ্ট্রপতির ঈদ শুভেচ্ছা ■ লকডাউনে বিচারিক ক্ষমতা পাচ্ছে পুলিশ ■ ২৪ ঘণ্টায় ৩১ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ১২৯০ ■ ঈদের জামাতে মানতে হবে যেসব শর্ত ■ সব কষ্ট নিম্ন-মধ্যবিত্তদের ■ বিএনপির কাছ থেকে কোন জবাব পাচ্ছি না ■  বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ের রেকর্ড
বিনা চিকিৎসায় ১৮ জনের মৃত্যু
রংপুর মেডিকেলে ১৯ দিন কিডনি ডায়ালাইসিস বন্ধ
আফরোজা সরকার, রংপুর
Published : Wednesday, 28 April, 2021 at 5:15 PM, Update: 28.04.2021 5:23:00 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

রংপুর মেডিকেলে ১৯ দিন কিডনি ডায়ালাইসিস বন্ধ

রংপুর মেডিকেলে ১৯ দিন কিডনি ডায়ালাইসিস বন্ধ

উত্তরাঞ্চলের একমাত্র বিশেষায়িত চিকিৎসা কেন্দ্র রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কিডনি রোগীদের ডায়ালাইসিস বিভাগটি ১৯ দিন ধরে বন্ধ থাকার  ফলে কিডনি জটিলতার কারণে ডায়ালাইসিস করতে পারছেন না শত শত রোগী। এ কারনে ১৯ দিনে ডায়ালাইসিস করতে না পারায় ১৮ জন রোগী বিনা চিকিৎসায় মারা গেছে বলে হাসপাতালে আসা রুগী সূত্রে জানা গেছে।

দায়িত্বরত নার্স আয়া আর টেকনিশিয়ানরা বলছেন, ডায়ালাইসিসের পানি বিশুদ্ধকরণ প্যান্ট এবং বেশ কয়েকটি ডায়ালাইসিস মেশিন বিকল হওয়ায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। মাত্র ছয় লাখ টাকা খরচ করলে দুটি পানি বিশুদ্ধকরণ প্যান্ট বসানো সম্ভব। কিন্তু সেটাই কেনা হচ্ছে না। অথচ ডায়ালাইসিস বিভাগ থেকে প্রতি মাসে আয় হয় তিন লাখ টাকারও বেশি।

সরেজমিন দেখা গেছে, রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নেফ্রোলজি (কিডনি) বিভাগের ডায়ালাইসিস বিভাগে গিয়ে দেখা গেছে, সবগুলো বেড রোগীশূন্য। কয়েকদিন আগে ৫০ থেকে ৬০ জন কিডনি রোগী উপস্থিতি থাকতো। এ বিষয়ে কয়েক জন দায়িত্বরত নার্স, আয়া ও টেকনিশিয়ান বলেন, বর্তমানে অলস সময় পার করছি। ডায়ালাইসিস বিভাগে এখন সুনসান নীরবতা।

কর্তব্যরত ডায়ালাইসিস ইউনিটের টেকনিশিয়ান মাসুদ জানান, চলতি মাসের ৮ এপ্রিল থেকে ডায়ালাইসিস ইউনিটটি পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। কারণ হিসেবে তিনি জানালেন, ডায়ালাইসিসের প্রধান  উপাদান পিউরিফাইড পানি, যা মেশিনের সাহায্যে পরিশোধন করা হয়। সেই মেশিন দুটি পুরোপুরি বিকল হয়ে গেছে। এর আগেও কয়েকবার মেশিন দুটি বিকল হয়েছিল, পরে কোনও রকমে মেরামত করা হয়। এবার ঢাকা থেকে আসা টেকনিশিয়ানরা জানিয়ে দিয়েছেন, এই মেশিন আর সচল করা সম্ভব নয়। নতুন মেশিন স্থাপন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, একজন কিডনি রোগীকে চার ঘণ্টাব্যাপী ডায়ালাইসিস করতে হয়। এজন্য একেক রোগীর জন্য ১৮০ লিটার পিউরিফাইড পানির প্রয়োজন হয়। এটা ছাড়া ডায়ালাইসিস করা যাবে না। সেই মেশিন যদি নষ্ট থাকে তাহলে কোনও ভাবেই ডায়ালাইসিস করা যাবে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্তব্যরত নার্স জানালেন রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ডায়্লাইসিস করতে ছয় মাসের প্যাকেজে মাত্র ২০ হাজার টাকা লাগে। প্রতিবার ডায়ালাইসিস করতে খরচ পড়ে ৪শ’ টাকা। আর বাইরে করলে  প্রতিবার তিন হাজার টাকা লাগে। তাই দরিদ্র মানুষরা বাইরে ডায়ালাইসিস করতে পারেন না। ফলে গত ১৯ দিনে ১৮ জন রোগী মারা গেছেন। তারা সবাই এখানকার তালিকাভুক্ত রোগী। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া না হলে আরও অনেকেই মারা যাবেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

ডায়ালাইসিস ইউনিট ইনচার্জ মোখলেসুর রহমান জানান, ডায়ালাইসিস মেশিন আগে ছিল ৩০টি, এখন ১৮টিতে দাঁড়িয়েছে। বাকিগুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে। তার পরেও রোগীদের সেবা দেওয়া চলছিল কিন্তু দুটো মেশিন নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ডায়ালাইসিস পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। বিষয়টি বিভাগীয় প্রধানের মাধ্যমে হাসপাতালের পরিচালককে জানানো হয়েছে।

এদিকে নেফ্রোলজি ওয়ার্ডে গিয়ে মাত্র একজন কিডনি রোগে আক্রান্ত রোগীর দেখা পাওয়া গেল। পুরো ওয়ার্ডে ফাঁকা পড়ে আছে অর্ধশতাধিক বেড। কুড়িগ্রাম থেকে আসা কিডনি রোগে আক্রান্ত ১৬ বছরের কিশোর সালাম জানালো, হাসপাতালের বাইরে বেসরকারি তিন-চারটি হাসপাতালে ডায়ালাইসিস করা যায়। প্রথমে দিতে হয় ১৫ হাজার টাকা, এরপর প্রতিবারের জন্য দিতে হয় তিন হাজার টাকা। সালামের মা মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ। প্রতিবার তিন হাজার টাকা দিয়ে ডায়ালাইসিস করা কোনও ভাবে সম্ভব নয়। রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ডায়ালাইসিস করতে লাগে মাত্র ৪শ’ টাকা। ১৯ দিন যাবৎ মেশিন নষ্ট অথচ কর্তৃপক্ষ কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, বাইরে থেকে ডায়ালাইসিস করিয়ে ওয়ার্ডে ভর্তি করে অন্যান্য চিকিৎসা নিতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

এদিকে নেফ্রোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আনিসুজ্জামান জানান, মেশিন নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ডায়ালাইসিস করতে না পারায় রোগীদের চিকিৎসা হচ্ছে না। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হাসপাতালের পরিচালকের সঙ্গে কথা বলতে বলেন তিনি।

সার্বিক বিষয়ে জানতে হাসপাতালের পরিচালক ডা. রেয়াজুল করিমের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মেশিন নষ্ট তাই ডায়ালাইসিস করা যাচ্ছে না, একারনে রোগীদের চিকিৎসা হচ্ছে না। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এফএইচ/বি


আরও সংবাদ   বিষয়:   রংপুর  


আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
২৪ ঘণ্টায় ৩১ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ১২৯০
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
সহযোগি সম্পাদক
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
এম. এ হান্নান
সহকারি সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন
০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবাইল ফোন
০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল
[email protected]
ফেসবুক
facebook.com/deshsangbad10

Developed & Maintenance by i2soft
logo
up