শনিবার, ৮ মে ২০২১ || ২৫ বৈশাখ ১৪২৮
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ ভারত ফেরত দুই বাংলাদেশির শরীরে ভারতীয় ভেরিয়েন্ট শনাক্ত ■ শুধু তৈরি পোশাকের উপর নির্ভর করলে হবে না ■ ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত আরও ১৪ দিন বন্ধ ■ বোমা হামলায় আহত নাশিদের অবস্থা সংকটাপন্ন ■ খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে সিদ্ধান্ত রোববার ■ ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ জনের মৃত্যু ■ দেশে করোনার ভারতীয় ধরন শনাক্ত ■ অবৈধ নিয়োগ তদন্তে রাবিতে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি ■ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরপাল্লার পরিবহন চালাতে চান মালিকরা ■ করোনায় মৃত্যুতে ভারতের রেকর্ড ■ বিশ্বে করোনা রোগী ২ কোটি ছুঁই ছুঁই ■ চীনের সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দিল ডব্লিউএইচও
মার্কেটে ব্যাপক ক্রেতা, রেকর্ড বিক্রির প্রত্যাশা
দেশসংবাদ, ঢাকা
Published : Sunday, 2 May, 2021 at 12:10 AM, Update: 02.05.2021 11:25:49 AM
Zoom In Zoom Out Original Text

মার্কেটে ব্যাপক ক্রেতা, রেকর্ড বিক্রির প্রত্যাশা

মার্কেটে ব্যাপক ক্রেতা, রেকর্ড বিক্রির প্রত্যাশা

ঈদের কেনাকাটা ও ব্যবসায়ীদের কথা মাথায় রেখে বিধিনিষেধের মধ্যে মার্কেট ও বিপণিবিতান খুলে দিয়েছে সরকার। ঈদকে কেন্দ্র করে সবাই পছন্দের জামা-কাপড় কিনতে প্রখর রোদ ও করোনা ভীতিকে উপেক্ষা করে ক্রেতাদের ঢল নেমেছে রাজধানীর মার্কেটগুলোতে। মার্কেট থেকে শুরু করে ফুটপাত পর্যন্ত সর্বত্রই চলছে কেনাকাটার ধুম। মানুষের ভিড়ে তিল ধারণের জায়গাও নেই। শুধু মার্কেটই নয়, ফুটপাত, ফুটওভার ব্রিজ সবকিছুই মানুষে টইটম্বুর। প্রচণ্ড ভিড় এবং ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ বেশি থাকায় মূল সড়কে তৈরি হয়েছে দীর্ঘ যানজট।

শনিবার (১ মে) রাজধানীর সায়েন্স ল্যাবরেটরি, এলিফ্যান্ট রোড, প্রিয়াঙ্গন শপিং সেন্টার, নূর ম্যানশন, ধানমন্ডি হকার্স মার্কেট, নুরজাহান মার্কেট, গাউছিয়া সুপার মার্কেট, চাঁদনী চক শপিং কমপ্লেক্স ও আশপাশের বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, পুরো এলাকাজুড়েই ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। বিপুল আগ্রহ নিয়ে ক্রেতারা তাদের পছন্দের পোশাক, জুতা-স্যান্ডেল, কসমেটিকসসহ গৃহস্থালির বিভিন্ন সামগ্রী কিনছেন।

কেনাকাটা করতে আসা এসব ক্রেতাদের মধ্যে নারীর সংখ্যা বেশি হলেও ছোট্ট শিশু-কিশোরদের ও দেখা গেছে বাবা-মায়ের সঙ্গে। এ অবস্থায় দম ফেলার ফুরসতও পাচ্ছেন না বিক্রেতারা। অবশ্য ক্রেতাদের এমন উপচেপড়া ভিড়ে বেশ খুশি বিক্রেতারা।

ব্যস্ততার মাঝেও তারা জানালেন, মেয়েদের সালোয়ার-কামিজ, থ্রি-পিস, হাফসিল্ক শাড়ি, কাতান শাড়ি, মসলিন শাড়ি, স্কার্ফ, হিজাব, জুয়েলারি, ব্যাগ, জুতা, কসমেটিকস এবং ছেলেদের পাঞ্জাবি-পায়জামা, ফতুয়া, শার্ট-প্যান্ট বেশি বিক্রি হচ্ছে।

ধানমন্ডি হকার্স মার্কেটের শাড়ি-কাপড় ব্যবসায়ী হাসিনুর রফিক বলেন, দীর্ঘদিন ব্যবসার মন্দা থাকার পর ক্রেতাদের উপস্থিতি বেড়েছে। আশা করছি, আগের পুরনো অবস্থা কেটে যাবে এবং এবারের ঈদে রেকর্ডসংখ্যক বিক্রি হবে। গতবার রোজার ঈদের আগে দোকান খুলে দিলেও এত বিক্রি হয়নি। কিন্তু এবার ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশ ভালো। আশা করছি, ঈদের আগে বিক্রি আরও জমজমাট হবে।

প্রিয়াঙ্গন শপিং সেন্টারের এম জে ফ্যাশনের বিক্রয়কর্মী জহির উদ্দিন বলেন, গতকাল থেকে ক্রেতাদের উপস্থিতি বেড়েছে। এই কয়েকদিন শুধুমাত্র শাড়ি এবং নারীদের আইটেম বিক্রি হলেও এখন পাঞ্জাবি-পায়জামার চাহিদাও বেড়েছে। দীর্ঘদিন পর এত বেশি ক্রেতার দেখা পাচ্ছি।

তবে গণপরিবহন বন্ধ না থাকলে আরও বেশি সংখ্যক ক্রেতার দেখা মিলত বলে মনে করছেন গাউছিয়া মার্কেটের ব্যবসায়ী হোসেন মিয়া। তিনি বলেন, সবকিছুই তো চলছে। তবে শুধুমাত্র গণপরিবহন বন্ধ। কেন বন্ধ রাখা হলো? স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন খুলে দেওয়া হোক। অনেকেই দূরদূরান্ত থেকে আসতে পারছেন না। যারা আসছেন তাদেরও বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে এবং সড়কে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তাই অচিরেই গণপরিবহন চালু করে দেওয়া দরকার।

কিন্তু মার্কেট, ফুটপাত ও দোকানগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির কোনো বালাই দেখা যায়নি। ক্রেতা এবং বিক্রেতা উভয় পক্ষকেই দেখা গেল স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা মাস্ক না পরেই বেচাকেনা করতে।

কেরানীগঞ্জ থেকে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে কেনাকাটা করতে আসা ফিরোজ মাহমুদ বলেন, এত সংখ্যক মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাটা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। যারা এখানে আমরা এসেছি, সবাই আমরা সেটা জানি। শুধুমাত্র মাস্কই একমাত্র ভরসা। এত মানুষের মাঝ থেকে করোনায় সংক্রমিত হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক বিষয়।

আরেক ক্রেতা শিরিন সুলতানা বলেন, এবারের ঈদ গ্রামের বাড়িতে করব। সেখানে মা-বাবা রয়েছে, ছোট ভাই-বোন রয়েছে, তাদের জন্য কেনাকাটা করতে এসেছি। তাছাড়া অন্যান্য জায়গার তুলনায় নিউ মার্কেটে তুলনামূলক কম দামে কাপড় কেনা যায় এবং দোকানের সংখ্যা বেশি হওয়ায় যাচাইও করা যায়। তবে ঈদের আগেই এত বেশি ভিড় হবে তা চিন্তা করিনি।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনায় সংক্রমণের ভয় এখনও কেটে যায়নি। এর মাঝেই এত বেশি জমায়েত ও লোকসমাগম প্রাণহানির কারণ হতে পারে। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোশতাক হোসেন বলেন, এই মুহূর্তে করোনা সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে সংক্রমণ রোধ করা সম্ভব হবে না। জোর করে মানুষকে দিয়ে স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করানো যাবে না। সবাইকে নিজের জায়গা থেকে দায়িত্বশীল হতে হবে।

দেশসংবাদ/ডিপি/এসআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  ঈদ   বিধিনিষেধ   করোনা   মার্কেট  


আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
ভারত ফেরত দুই বাংলাদেশির শরীরে ভারতীয় ভেরিয়েন্ট শনাক্ত
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
সহযোগি সম্পাদক
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
এম. এ হান্নান
সহকারি সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন
০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবাইল ফোন
০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল
[email protected]
ফেসবুক
facebook.com/deshsangbad10

Developed & Maintenance by i2soft
logo
up