রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১ || ১০ শ্রাবণ ১৪২৮
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ ময়মনসিংহ মেডিকেলে আরও ১৭ জনের মৃত্যু ■ রাজশাহী মেডিকেলে আরও ১৪ জনের মৃত্যু ■ কুষ্টিয়ায় আরও ১৯ জনের মৃত্যু ■ সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দেয়ার নির্দেশ ■ বহিস্কার হলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর ■ বাকপ্রতিবন্ধীকে কুপিয়ে হত্যা ■ দেশে এলো ২৫০ ভেন্টিলেটর ■ আ.লীগের মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা ■ ঈদে সারাদেশে ৯১ লাখ পশু কোরবানি ■ ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ ■ দেশের পথে ‘অক্সিজেন এক্সপ্রেস’ ■ আরও ২১ কোটি টিকার ব্যবস্থা হয়েছে
৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার
দেশসংবাদ ডেস্ক
Published : Tuesday, 6 July, 2021 at 11:16 PM, Update: 07.07.2021 9:13:42 AM
Zoom In Zoom Out Original Text

৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার

৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার

দিল্লীর উত্তর প্রদেশে বসবাস করা দুই রোহিঙ্গা পরিবারের ৭ সদস্য অনুপ্রবেশ করে কক্সবাজারের কতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন। মঙ্গলবার (৬ জুলাই) বিকেলে উখিয়ার কুতুপালং মধুরছরা ক্যাম্প-৩ এর ব্লক-জি/১ শেডের এফসিএন-১৫৫১৪১ নম্বর ধারি রহিমা খাতুনের ঘর হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

ক্যাম্প সিআইসি তাদেরকে কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের অধীন ট্রানজিট সেন্টারে পাঠিয়েছে। কুতুপালং ক্যাম্পে কর্মরত কক্সবাজার ১৪ এপিবিএন অধিনায়ক নাঈমুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন।

আটক অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা হলেন- মিয়ানমারের আবিয়াব জেলার বুচিডং থানার কিয়াংবু এলাকার মৃত মকবুল আহম্মেদের ছেলে মোহাম্মদ আমিন (৩৫), তার স্ত্রী খতিজা বেগম (২৭) এবং মেয়ে বিবি হাফছা (১২) ও একই এলাকার ছলিম মাহাম্মুদের ছেলে আব্দুর রহমান (২৭), তার স্ত্রী সামজিদা (২৫) এবং ছেলে মোহাম্মদ ওমর (৫), মেয়ে ইয়াছমিন ফাতেমা (৮)।

তারা ভারতের দিল্লীর উত্তর প্রদেশের ছম্ভল, মুরাদাবাদ এলাকায় বাস করত। সেখানে তারা ইউএনএইচসিআরর তালিকাভুক্ত শরণার্থী। মধুরছরা (ক্যাম্প-৩) এর ব্লক-জি/১ শেডের রহিমা খাতুন (স্বামী-মৃত শামসু আলাম) মোহাম্মদ আমিন ও আব্দুর রহমানের শাশুড়ি।

আটকদের বরাত দিয়ে ১৪ এপিবিএন অধিনায়ক (এসপি) নাঈমুল হক বলেন, আব্দুর রহমান ও মোহাম্মদ আমিন ২০১০ সালে মিয়ানমার হতে ভারতে যান। এরও বছর পাঁচেক আগে থেকে খতিজা ও সামজিদার মা রহিমা পরিবারসহ মিয়ানমার হতে ভারতে গিয়ে বসবাস করতেন। সেখানে আব্দুর রহমান ও মোহাম্মদ আমিন এর সাথে খতিজা ও সামজিদা’র বিয়ে হয়।

২০১৭ সালে মিয়ানমার হতে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসার পর রহিমা খাতুন তার মেয়ে রাবেয়া বেগম ও ৩ ছেলে ছানাউল্যা, রোকন উল্যা, মো. সেলিমকে নিয়ে ভারত হতে বাংলাদেশ এসে উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৩ এর জি/১-ব্লকে আশ্রয় নেন। রহিমা খাতুন বাংলাদেশ থেকে ভারতে থাকা তার মেয়ে ও মেয়ের জামাইদের সাথে মোবাইল ফোনে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন।

রোহিঙ্গা আব্দুর রহমান ও মোহাম্মদ আমিন তাদের পরিবারসহ ভারতের দিল্লির ছম্ভল, মুরাদাবাদের বিকাশ পুরী শরণার্থী ক্যাম্পের ইউএনএইচসিআর-এর নিবন্ধিত শরণার্থী হলেও সেখানে তারা কোনো রেশন সামগ্রী পেত না। ফলে, রাজমিস্ত্রির কাজ করে সংসার চালাত। সেখানে তাদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ার কোন সুযোগও ছিল না।

তাই, উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৩ এ বসবাসকারী তাদের শাশুড়ি রহিমা বেগমের সাথে যোগাযোগ করে ২৮ জুন ভারত হতে রওয়ানা দেয় তারা। সিলেটের মৌলভীবাজার সীমান্ত দিয়ে ৩০ জুন রাত ৮টায় তারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। একই দিন মৌলভীবাজার হতে ১৬ হাজার টাকা মাইক্রোবাস ভাড়া নিয়ে রাত ১০টায় রওয়ানা দিয়ে ১ জুলাই সকাল ৭টায় চট্টগ্রামে এসে পৌঁছায়।

চট্টগ্রাম হতে ৫ হাজার টাকায় পিকআপ ভাড়া করে ৫ জুলাই রাত ৮টার দিকে পৌঁছায় কুতুপালং বাজারে। সেখান থেকে খতিজা ও সামজিদার ভাই রোকন উল্যা তাদের ক্যাম্প-৩ এ তাদের মায়ের শেডে নিয়ে আসে।

তিনি জানান, মঙ্গলবার খবর আসে ভারত থেকে দুটি রোহিঙ্গা পরিবার ক্যাম্পে অবস্থান নিয়েছে। এ খবরে মধুছড়া ক্যাম্প পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত রহিমার বাড়ি হতে তাদের আটক করে ক্যাম্প সিআইসির কার্যালয়ে নিয়ে যায়।

দেশসংবাদ/জেএন/এসআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  রোহিঙ্গা   আটক   ভারত   


আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা
ময়মনসিংহ মেডিকেলে আরও ১৭ জনের মৃত্যু
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
সহযোগি সম্পাদক
এনামুল হক ভূঁইয়া
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
এম. এ হান্নান
সহকারি সম্পাদক
মোহাম্মদ রুবাইয়াত আনোয়ার
মেবিন হাসান
যোগাযোগ
টেলিফোন
০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবাইল ফোন
০১৭১৩ ৬০১৭২৯
ইমেইল
[email protected]
ফেসবুক
facebook.com/deshsangbad10

Developed & Maintenance by i2soft
logo
up