ঢাকা, বাংলাদেশ || রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০ || ১৪ চৈত্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ জাসদ নেতা মিন্টু গ্রেফতার ■ ফের নির্বাচনের দাবিতে ইসিকে স্মারকলিপি দেবে ঐক্যফ্রন্ট ■ নতুন মন্ত্রীদের শপথ গ্রহণ রোববার ■ বিবিসি’র সেই ভিডিও নিয়ে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী ■ বিদেশিদের বিএনপির ভরাডুবির কারণ জানালেন শেখ হাসিনা ■ বিশ্ব গণমাধ্যমে বাংলাদেশের নির্বাচন ■ সংবিধান লঙ্ঘনে ইসির বিচার দাবি খোকনের ■ শপথ গ্রহণে যাচ্ছে না ঐক্যফ্রন্টের সংসদ সদস্যরা! ■ আ’ লীগের দুই গ্রুপের কোন্দলে যুবলীগ নেতা নিহত ■ বিদেশি পর্যবেক্ষক ছিল একেবারেই আইওয়াশ ■ নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ায় গভীর উদ্বেগ টিআইবি’র ■  আ’লীগের জয়জয়কার, মুছে গেল বিরোধীরা
দোহার-নবাবগঞ্জে হামলা-ভাংচুর, ব্যাপক ধরপাকড়
দেশসংবাদ ডেস্ক :
Published : Sunday, 30 December, 2018 at 7:10 AM, Update: 31.12.2018 10:19:04 PM

দোহার-নবাবগঞ্জে হামলা-ভাংচুর, ব্যাপক ধরপাকড়

দোহার-নবাবগঞ্জে হামলা-ভাংচুর, ব্যাপক ধরপাকড়

নির্বাচনের আগের দিনেও ঢাকা-১ আসনে (দোহার-নবাবগঞ্জ) মটরগাড়ি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামের কর্মী-সমর্থকদের ওপর নানাভাবে হয়রানি ও ব্যাপক ধরপাকড় করা হয়। কর্মী-সমর্থক ও নির্বাচনী এজেন্টদের বাড়িতে হামলা করা ছাড়াও তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর ও লুটপাট চালানো হয়। দেয়া হয় নানা রকম হুমকি।

শনিবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এ ধরনের তথ্য আসা অব্যাহত ছিল। রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটকের সংখ্যা ২২ জন ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে শুধু একটি এলাকা থেকেই আটক করা হয় ১৭ জনকে।

পরে জাহাঙ্গীর ও রুস্তম আলী নামের দুই কর্মীকে ২ বছর করে সাজা দিয়ে বাকিদের ছেড়ে দেয়া হয়। এ ছাড়া সন্ধ্যার পর থেকেই বাড়ি বাড়ি গিয়ে কর্মী-সমর্থক ও এজেন্টদের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছিল। তাদেরকে কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়া হয়। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ক্যাডারদের সঙ্গে সাদা পোশাকে পুলিশ ছিল। মটরগাড়ির এক এজেন্টকে গ্রেফতারের পর তার কাছ থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা উদ্ধারের গল্প সাজানো হয়। এ ঘটনার পর থেকে কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, দোহারের মুকসেদপুর ইউনিয়নের মটরগাড়ি প্রতীকের দুই এজেন্ট সালাউদ্দিন পুঙ্খী ও হেলাল উদ্দিনকে শুক্রবার ভোররাতে গ্রেফতার করা হয়। পূর্ব মৌরা গ্রামে পুঙ্খীকে তার শ্বশুরবাড়ি থেকে ও হেলাল উদ্দিনকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পরে নাশকতার পেন্ডিং মামলায় তাদের তিন দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। স্থানীয়রা জানান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১০-১২ জনের একটি টিম প্রথমে হেলালের বাড়িতে যায়। পরে তাকে নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা পুঙ্খীর শ্বশুরবাড়িতে অভিযান চালান।

পুঙ্খীর স্ত্রী শিউলি বেগম বলেন, ‘বাড়িতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দেখে আমরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। বৃদ্ধ এবং শিশুরা কান্নাকাটি শুরু করে। পুলিশ আমাদের বলে, পুঙ্খীর সঙ্গে আমাদের কিছু কথা আছে। কথা শেষে ঘণ্টাখানেক পর তাকে বাসায় দিয়ে যাব। কিন্তু শনিবার বিকালেও সে ফিরে আসেনি।’ এদিকে হেলাল উদ্দিনের আইনজীবী অ্যাভোকেট নাজমুল হোসেন বলেন, তাদের শনিবার আদালতে হাজির করে গাড়ি ভাংচুর, নাশকতা, হত্যাচেষ্টা এবং বিস্ফোরক আইনে ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করে পুলিশ। এ ছাড়া নয়নশ্রী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিপন মোল্লাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা করে বলে খবর পাওয়া গেছে।

দিনভর ব্যাপক ধরপাকড়ের মধ্যে বান্দুরা এলাকায় মটরগাড়ি প্রতীকের এজেন্ট ও জাতীয় পার্টির নেতা জাহাঙ্গীর চোকদারের বাসায় অভিযান শুরু হলে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, জাহাঙ্গীর অবৈধ অর্থ ছড়িয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছিলেন। এমনকি সেখান থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা উদ্ধারের দাবি ছিল পুলিশের।

তবে নবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, উদ্ধারকৃত টাকা নবাবগঞ্জের ৯টি ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত এজেন্টদের তিন বেলা খাবার ও যাতায়াত বাবদ দেয়া হয়েছিল বলে আমরা জানতে পেরেছি।

ভ্রাম্যমাণ আদালত এ ঘটনাকে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে জাহাঙ্গীর ও রুস্তম আলীকে ২ বছর করে সাজা দেন। এ সময় মটরগাড়ি প্রতীকের আরও ১৭ কর্মী-সমর্থককে আটক করা হলেও রাতে প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়।

এদিকে কলাকোপায় লুৎফা মেম্বারের বাড়িতেও অভিযান চালায় পুলিশ। এ ছাড়া কোমরগঞ্জ বাজারে মটরগাড়ি প্রতীকের কর্মী সেলিমের দোকানে লুটপাট চালায় দুর্বৃত্তরা। হামলার শিকার সেলিম সাংবাদিকদের জানান, তার দোকান থেকে ৭-৮ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে গেছে এবং তার বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এ ছাড়া শনিবার দুপুরে জয়কৃষ্ণপুরে সালমা ইসলামের তিন এজেন্টের বাড়িতে হামলা হয়। এ সময় সেখানে থাকা দুটি মোটরসাইকেল ভাংচুর ও বাড়িতে থাকা স্বর্ণালংকার লুটপাট করা হয়। নবাবগঞ্জের বারোয়াখালী ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির সভাপতি আতাহার আলীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

অপরদিকে দোহারের বিলাসপুর থেকে জাহাঙ্গীর নামের মটরগাড়ি প্রতীকের এক এজেন্টকে শনিবার সন্ধ্যায় আটক করে পুলিশ। রাত ১০টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিভিন্ন স্থান থেকে আরও গ্রেফতার ও হয়রানির তথ্য আসছিল।

এ বাস্তবতায় সাধারণ ভোটাররা সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। তাদের অভিযোগ, প্রশাসন মুখে সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার কথা বললেও বাস্তবে কাজ করছে সম্পূর্ণ উল্টো। কিন্তু বাস্তবতা হল- এ নিয়ে প্রতিকার বা ন্যায়বিচার করার যেন কেউ নেই।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/আইশি 


আরও সংবাদ   বিষয়:  দোহার-নবাবগঞ্জে হামলা ভাংচুর ব্যাপক ধরপাকড়  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft