ঢাকা, বাংলাদেশ || শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ || ২১ চৈত্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ অকারণে বাইরে গেলে কঠিন ব্যবস্থা নেয়া হবে ■ চাকরি বাঁচাতে ঢাকামুখী মানুষের ঢল! ■ নিউইয়র্কে ঘণ্টায় ২৩ জনের মৃত্যু! ■ করোনায় বিশ্বব্যাপী মৃত্যু সংখ্যা ৬০ হাজার ■ কথাবার্তা ও স্বাভাবিক শ্বাসপ্রশ্বাসেও করোনা ছড়াতে পারে ■ একদিনে করোনায় আক্রান্ত একলাখ মানুষ ■ রোববার খুলছে সব পোশাক কারখানা ■ নৌযানে আইসোলেশন সেন্টার করা হচ্ছে ■ দেশে করোনায় আরো দু’জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়ে ৭০ ■ যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু ৭ হাজার, আক্রান্ত ৩ লাখ ■ করোনায় আক্রান্ত র‌্যাব সদস্য, টেকনাফে ১৫ বাড়ি-দোকান লকডাউন ■ বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ৫৯ হাজার অতিক্রম
কিশোর গ্যাং কালচার
মো. আসাদুল্লাহ শাকিল
Published : Friday, 20 December, 2019 at 11:03 PM, Update: 20.12.2019 11:07:31 PM

কিশোর গ্যাং

কিশোর গ্যাং

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয় ‘কিশোর গ্যাং’ কালচার। স্কুল-কলেজের গণ্ডি পার হওয়ার আগেই কিশোরদের একটা অংশের বেপরোয়া আচরণ এখন পাড়া-মহল্লায় আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২০০২ সালের আশেপাশের সময়ে কিশোর গ্যাং শুধু ঢাকা ও চট্রগ্রামে বৃদ্ধি পায়, কিন্তু বর্তমান সময়ে সারাদেশের বিভিন্ন ছোট বড় শহর এমনকি গ্রামেরও আতংকের কারণ হিসেবে দাঁড়িয়েছে। মাদকে আসক্ত হওয়া থেকে শুরু করে চুরি,  ছিনতাই, ডাকাতি ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পরছে। সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিজেদের গ্রুপে বা অন্যান্য গ্যাংয়ের সাথে সংঘাতে জড়িয়ে জড়ায় এমনকি খুনখারাপি থেকে পিছু পা হয়না। গত দুই বছরে ৬ টি খুনের ঘটনা তাই বলে।

ফেসবুক, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ,ভাইভারসহ বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে উদ্ভট নাম দিয়ে গ্রুপ খুলে তারা কার্যক্রম চালায়। এসব গ্রুপে আলোচনা হয় তাদের কর্মকান্ডের বিষয়। শুরুর দিকে শুধু ইভটিজিংয়ে জড়িয়ে পরলেও, বর্তমানে খুন, ধর্ষণ, মাদকের ব্যবসা ও রাজনৈতিক পিকেটিংয়ে জড়িয়ে পরছে। নগরভিত্তিক গ্যাং আরো ভয়ংকর। বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো, মোটরসাইকেল রেস, হর্ণ বাজানো, চাঁদাবাজি তাদের প্রতিদিনের রুটিন। প্রত্যেকটি গ্যাংয়ের সদস্য মাদকের ছোবলে পরে জীবন নষ্ট করছে। সিগারেট, ইলেকট্রিক সিগারেট, মদ, ইয়াবাসহ অন্যান্য নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন ও এসবের অর্থ জোগানোর জন্য বিভিন্ন অপরাধ করা তাদের নৈমিত্তিক কাজ। ঢাকা শহরের অলিগলিতে জন্ম নেয় বিভিন্ন নামের গ্যাং, যেমন- ডিসকো বয়েজ, নাইন স্টার, হিরো বয়েজ, স্টার বয়েজ, চিপসি সহ আরো বহু নামের গ্যাং।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে তারা এলাকার ত্রাসে পরিণত হয়, ভয়ংকর অপরাধে লিপ্ত হয়। সবচেয়ে আলোচিত উদাহরণ রিফাত শরীফ হত্যা। মূল আসামি নয়ন বন্ড ও সকল আসামি '০০৭' গ্রুপের সদস্য। নিহত রিফাত শরীফসহ সকলে কিশোর গ্যাংয়ে জড়িত ছিল। স্থানীয় প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক নেতার ছত্রছায়ায় তারা বিভিন্ন অপরাধে জড়িত ছিল, যেমন রাজনৈতিক অস্থিরতা, চাঁদাবাজি, হয়রানি, মাদক ব্যবসা। নয়ন বন্ড এলাকার ত্রাস ছিল।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সমাজে নানা অসংগতি রয়েছে, নিজেদের সংস্কৃতি থেকে দুরে যাচ্ছে। আকাশ সংস্কৃতির প্রভাব,  কিশোর বয়সে হিরোইজমের কারণ তারা এসব অপরাধে জড়িত হচ্ছে, আইনের ভাষায় তাকে ‘জুভেনাইল সাব কালচার’ বলে। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় বর্তমানে কিশোর গ্যাং কালচার বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাজনৈতিক বড়ভাই ও নেতাদের স্বার্থে ব্যবহৃত হয় বিভিন্ন গ্যাং। শুধু তাই নয় সমাজে যারা অপরাধ করছে তারা বিত্তশালী ও লাভবান হচ্ছে, তা দেখে তারা অনুপ্রাণিত হয়। ফলে তাদের পারিবারিক ও সামাজিক নিয়ন্ত্রণ থাকেনা।

কিশোর অপরাধ বা কিশোর গ্যাং কালচার সহজে নির্মূল করা সম্ভব না। তবে নিয়ন্ত্রণ করতে অভিভাবক, শিক্ষক, সরকারের পক্ষে রাজনৈতিক নেতা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে একসাথে কাজ করতে হবে। অভিভাবকদের প্রয়োজন নিজেদের সন্তানদের সময় দেওয়া ও চাহিদা পূরণ করা। তারা কাদের সাথে মিশে, স্কুল কলেজে উপস্থিতির খবর রাখা। ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষার দেওয়া প্রয়োজন। অবসর সময়ের জন্য খেলার মাঠের ব্যবস্থা ও অন্যান্য সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা করা। সর্বোপরি, বুদ্ধিভিত্তিক ও গঠনমূলক কাজে কিশোরদের যুক্ত করতে পারলে বিপথগামী কিশোরদের সুপথে ফিরিয়ে এবে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা ও মানবসম্পদে পরিণত করা সম্ভব।  

মো. আসাদুল্লাহ শাকিল
শিক্ষার্থী, চতুর্থ বর্ষ,
অপরাধতত্ত্ব ও পুলিশ সায়েন্স  বিভাগ,
মাওলানা ভাসানি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
সন্তোষ, টাঙ্গাইল।

 
দেশসংবাদ/এএস/এফএইচ/mmh


আরও সংবাদ   বিষয়:  কিশোর গ্যাং   মো. আসাদুল্লাহ শাকিল  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft