ঢাকা, বাংলাদেশ || বুধবার, ৮ এপ্রিল ২০২০ || ২৫ চৈত্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ উহান থেকে লকডাউন প্রত্যাহার ■ যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যু ১২ হাজার ছাড়াল ■ রাজধানীর ৫২ এলাকা লকডাউন ■ ফ্রান্সে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়ালো ■ বরিস জনসনের অসু্স্থতায় যেভাবে চলছে ব্রিটেন ■ করোনা থেকে মুক্তি পেতে মদ্যপানে ৬০০ জনের মৃত্যু ■ সৌদিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ছাড়িয়ে যাবে ■ দেশজুড়ে করোনা আতঙ্ক ■ গণস্বাস্থ্যকে করোনার কিট তৈরির চূড়ান্ত অনুমোদন ■ এবার গাজীপুর জেলা লকডাউন ■ লকডাউন নারায়ণগঞ্জ জেলা ■ ১৬ এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন পরিশোধের নির্দেশ
মেয়ের সহযোগিতায় মাকে হত্যা করে প্রেমিক!
দেশসংবাদ, মানিকগঞ্জ
Published : Tuesday, 28 January, 2020 at 9:28 AM

হত্যা

হত্যা

মা মাহমুদা বেগমকে (৪৫) হত্যার পরিকল্পনা করে মেয়ে জুলেখা আক্তার জ্যোতি আক্তার (১৯) ও তার প্রেমিক নাইম । হত্যায় অংশ নেন জ্যোতির প্রেমিক নাইম ইসলাম ও তার তিন সহযোগী। মার উপর একটাই ক্ষোভ পছন্দের ছেলের সঙ্গে বিয়েতে রাজী না হওয়া।

সোমবার বিকেলে মানিকগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাকিল আহমেদের কাছে ১৬৪-ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন গ্রেপ্তার জ্যোতি, নাইম ও নাইমের সহযোগী রাকিব। গত ২২ জানুয়ারি মানিকগঞ্জ শহরের দক্ষিণ সেওতা এলাকায় নিজবাড়িতে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় মাহমুদা বেগমকে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মানিকগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক শামীম আল মামুন জানান, লেপচাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যার পর জুলেখাকে হাত-পা ও মুখ বেঁধে স্বর্ণালংকার লুট করে ডাকাতির নাটক সাজায় নাইম।

শামীম আল মামুন জানান, হত্যাকাণ্ডের সময় বাড়িতে নিহতের একমাত্র মেয়ে জ্যোতি ছিলেন। তাকে মানিকগঞ্জ থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেন তিনি। শুক্রবার বিকেলে জুলেখার বাবা জহিরুল ইসলাম আলিয়ার বাদী হয়ে মানিকগঞ্জ সদর থানায় মেয়ে, তার প্রেমিক নাইম ইসলাম এবং নাইমের সহযোগী রাকিবসহ আরও দুইজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরে জ্যোতিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে মানিকগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে জুলেখার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার রাতেই তার বন্ধু কেরানীগঞ্জের আরাকুল গ্রামের নাইম ইসলাম (২৫) এবং তার সহযোগী একই গ্রামের রাকিবকে (২৫) গ্রেপ্তার করা হয়। বাকি দুই আসামকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানায় পুলিশ।

পুলিশ জানায়, নাইম পেশায় নির্মাণ শ্রমিক। জুলেখার সঙ্গে ফেসবুক-ম্যাসেঞ্জারে আট মাস আগে নাইমের পরিচয় হয় এবং দুজনের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জুলেখা নাইমকে বিয়ে করতে চাইলে তার মা রাজি হননি। সে কারণে তিন মাস আগে জ্যোতি ও নাঈম পরিকল্পনা করে তাকে হত্যা করার।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, মঙ্গলবার রাতেই নাইম ও তার ৪ সহযোগী জ্যোতির ঘরে প্রবেশ করে। রাতে কয়েক দফা চেষ্টা করেও হত্যার সুযোগ পায়নি। সকাল ৭টার দিতে জ্যোতির বাবা ফজরের নামাজ শেষে প্রাতভ্রমণে বের হলে তারা মাহমুদা বেগমকে হত্যা করে।

জুলেখার বাবা জহিরুল ইসলাম আলিয়ার জানান, তিনি পরিবার নিয়ে নিজস্ব পাঁচ তলা ভবনের দোতলায় বসবাস করেন। ২০১৫ সালে তিনি জেলা শহরের সেওতা এলাকায় গড়ে তোলেন ওই ৫ তলা ভবন। তিনি ১০ বছর কাতারে প্রবাসী জীবন কাটিয়ে দেশে এসে পোল্ট্রি ব্যবসা করছেন। বছর তিনেক আগে মেয়ে জ্যোতি আক্তারকে বিবাহ দেন ঢাকার ধামরাই এলাকার মারুফ সরকারের সঙ্গে। তিন মাস আগে মেয়ের বিচ্ছেদ ঘটলে তিনি বাবার বাড়িতে চলে আসেন। একমাত্র ছেলে মাজহারুল ইসলাম তুহিন (১৫) মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মিতরা এলাকায় একটি আবাসিক মাদ্রাসায় আবাসিকে থেকে পড়াশোনা করে।

দেশসংবাদ/আইএফ/এনকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  মেয়ে   মা   হত্যা   প্রেমিক  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft