ঢাকা, বাংলাদেশ || সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০ || ১৫ চৈত্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ করোনায় ইতালিতে আরও ৭৫৬ জনের মৃত্যু ■ এবার করোনায় স্পেনের রাজকুমারীর মৃত্যু ■ আমার ঘরে আমার স্কুল চালুর কারণ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী ■ খালেদা জিয়ার বাসায় পুলিশি নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি ■ জ্বর-কাশি, শ্বাসকষ্টে নারীর মৃত্য, পুরো গ্রাম লকডাউন ■ করোনা দুশ্চিন্তায় জার্মান মন্ত্রীর আত্মহত্যা ■ আ.লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে স্কুলছাত্রী নিহত, আহত ১০ ■ ভারতে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৬, নতুন আক্রান্ত ১০৬ ■ ভারতে লকডাউনে লাখ লাখ মানুষ অনাহারে! ■ খুলনায় করোনা ইউনিটে থাকা রোগীর মৃত্যু ■ শিগগিরই ১৪ দিনের লকডাউনে যেতে পারে নিউইয়র্ক ■ ডিএনসিসি মার্কেট হচ্ছে করোনা হাসপাতাল
হঠাৎ আবারও বাড়ছে পেঁয়াজের দাম
দেশসংবাদ, ঢাকা
Published : Friday, 31 January, 2020 at 10:59 AM, Update: 31.01.2020 11:13:10 AM

পেঁয়াজ

পেঁয়াজ

কয়েক দিন ধরে কমতে থাকলেও আবারও বেড়েছে পেঁয়াজের ঝাঁজ। এক দিনের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে সর্বোচ্চ ৪০ টাকা। এছাড়া বেড়েছে ভোজ্যতেল, ডাল, আদা, শুকনা মরিচ, এলাচ, দারুচিনির দামও।

বিক্রেতারা বলছেন, সিটি নির্বাচনের কারণে ঢাকায় সরবরাহ কমে যাওয়ায় এসব পণ্যের দাম বেড়েছে। তবে ক্রেতারা বলছেন, এসব বিক্রেতাদের অজুহাত মাত্র। কেন না, ভোটের এক দিন আগে পরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা রয়েছে, সেটা এখনও শুরু হয়নি। তাই বিক্রেতারা একজোট হয়ে একটি অজুহাত দেখিয়ে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, নয়াবাজার ও শান্তিনগর কাঁচাবাজারের বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এদিন প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৩০-১৪০ টাকায়। এক দিন আগেও বিক্রি হয় ৯০-১১০ টাকায়। আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৭০-১২৫ টাকায়। এক দিন আগে বিক্রি হয় ৬০ থেকে ৯০ টাকায়।

কারওয়ান বাজারের খুচরা পেঁয়াজ বিক্রেতা আরিফ বলেন, সিটি নির্বাচনের কারণে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ কম বলে বেশি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। খুচরায়ও এর প্রভাব পড়েছে। কিন্তু এসবই তাদের অজুহাত। তাদের কাছে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ রয়েছে। কিন্তু তারা কারসাজি করে বাড়তি দরে বিক্রি করছে। একই বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতা মো. আশরাফ বলেন, সিটি নির্বাচনের কারণে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে গাড়ি আসতে চাচ্ছে না- যার কারণে সরবরাহ কম। দামও বেশি।

অন্যদিকে বাজারে মুদি বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক দিন আগে বুধবার পাঁচ লিটারের সয়াবিন কোম্পানি ভেদে বিক্রি হয়েছে ৪৬৫ থেকে ৫১৫ টাকা- যা বৃহস্পতিবার বিক্রি হয়েছে ৪৭৫ থেকে ৫২০ টাকা। মশুরের ডাল মান ভেদে বিক্রি হয়েছে ১২০-১৩০ টাকা। এক দিন আগে ছিল ১১০-১২৫ টাকা।

প্রতি কেজি দারুচিনি বিক্রি হয়েছে ৪২০-৪৫০ টাকা। এক দিন আগে ছিল ৪০০-৪৪০ টাকা। আদা বিক্রি হয়েছে ১২০-১৮০ টাকা কেজি। এক দিন আগে ছিল ১১০-১৬০ টাকা। শুকনা মরিচ বিক্রি হয় ২৪০-৩৫০ টাকা কেজিতে। এক দিন আগে ছিল ২২০-৩৩০ টাকা। এলাচ (ছোট) প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৪৩০০-৫০০০ টাকায়। এক দিন আগে ছিল ৪২০০-৪৫০০ টাকা।

নয়াবাজারের মুদি বিক্রেতা মো. শাহীন বলেন, পাইকারি বাজারে একাধিক মুদি পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে- যার কারণে খুচরা বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে পণ্যগুলো। পাইকাররা পরিবহন বন্ধের অজুহাতে দাম বাড়িয়েছে। তাছাড়া শুক্রবার সবাই সপ্তাহের বাজার করবে একটু বেশি। ফলে সব কিছু বিবেচনা করে তারা দাম বাড়িয়েছে।

দেশসংবাদ/জেআর/এফএইচ/mmh


আরও সংবাদ   বিষয়:  পেঁয়াজ   দাম  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft