ঢাকা, বাংলাদেশ || বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ || ৩১ আষাঢ় ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ সাহেদ বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে ■ মুখোশের আড়ালে থাকা লোকজন ধরা পড়বেই ■ ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩৫৩৩, মৃত্যু ৩৩ ■ ঈদে ৯ দিন গণপরিবহন বন্ধ ■ আমাকে ছয় মাসের বেশি আটকে রাখা যাবে না ■ সাহেদকে নিয়ে উত্তরায় অভিযান ■ কাতারের কাছে হেরে গেল সৌদি জোট ■ মোটা হওয়ায় দৌড়াতে পারেননি সাহেদ ■ লিবিয়ায় মুখোমুখি তুরস্ক-মিসর, সংঘাতের আশঙ্কা ■ পাঠাওয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম নিউইয়র্কে খুন ■ ফু‌লে ফু‌লে সিক্ত হলেন এন্ড্রু কি‌শোর ■ যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে আক্রান্ত ৬১ হাজার
সান্তাহারে জীবন যুদ্ধের এক সফল নারী পেয়েরা বেগম
সাগর খান, আদমদীঘি (বগুড়া)
Published : Friday, 14 February, 2020 at 8:05 PM, Update: 14.02.2020 11:27:58 PM
Zoom In Zoom Out Original Text

সান্তাহারে জীবন যুদ্ধের এক সফল নারী পেয়েরা বেগম

সান্তাহারে জীবন যুদ্ধের এক সফল নারী পেয়েরা বেগম

“লাগবে নাকি প্লাষ্টিকের জগ, মগ, টিফিন বক্স, চিরুনী, বালতিসহ হরেক রকমের প্লাষ্টিকের জিনিস। রয়েছে সিলভারের হাড়ি, পাতিল। এছাড়াও রয়েছে স্টিলের চামুস, বাটিসহ হরেক রকমের জিনিস। লাগবে নাকি আপা। আসুন কম দামে পছন্দের জিনিস বেছে বেছে নেন।” এভাবেই বিভিন্ন মহল্লায়, শহরের বিভিন্ন মোড়ে গলা ছেড়ে ভ্যান গাড়ীতে বিভিন্ন রকমের প্লাস্টিক, সিলভার, স্টিলসহ নানা রকমের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ফেরি করে বিক্রি করেন পেয়েরা বেগম।
 
সান্তাহার পৌর শহর ও তার আশেপাশের বিভিন্ন মহল্লায় ভ্যান গাড়ী ঠেলে ঠেলে ফেরি করে জিনিস বিক্রি করে জীবন যুদ্ধে বেঁচে আছেন ফেরিওয়ালা পেয়েরা বেগম। এই সব এলাকায় মাঝে মধ্যেই ভ্যান গাড়ি ঠেলে ঠেলে ফেরি করে বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করতে দেখা যায়। অনেক ক্রেতারা তার ভ্যান গাড়ি ঘিরে ভ্যান গাড়িতে থাকা বিভিন্ন রকমের জিনিস দেখছেন। দেখছেন আর জিনিস কিনছেন। পেয়েরা বেগমের আসল বাড়ি গাইবান্ধা জেলার মহিমাগঞ্জের গড় গড়িয়া নামক গ্রামে। ওই গ্রামেই পেয়েরার দিন মজুর পরিবার বিয়ে দিয়ে ছিলো এক মাদকাশক্ত ছেলের সঙ্গে। বিয়ের পর পরই প্রতি দিনই অর্থের জন্য স্বামীর নির্যাতন চলতো পেয়েরা বেগমের উপর। এর এক পর্যায়ে পেয়েরা বেগম ওই মাদকাশক্ত স্বামীর সংসার ছেড়ে চলে আসে বাবা- মার কাছে।

পরবর্তিতে পরিচয় হয় বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার তালোড়া গ্রামের ফজল উদ্দিনের সঙ্গে। ফজল উদ্দিন পেয়েরা বেগমের গ্রামসহ গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন উপজেলার গ্রামে গ্রামে ফেরি করে বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করতো। মহিমাগঞ্জের গড় গড়িয়া গ্রামে ফেরি করে জিনিস বিক্রির সময় পেয়েরা বেগমের সঙ্গে পরিচয় হলে দু’জনের মাঝে গড়ে ওঠে প্রেমের সর্ম্পক। সম্পর্কের কিছু দিন পর ফজল উদ্দিন ও পেয়েরা বেগম বিয়ে করেন। পেয়েরা বেগমের ঘরে আসে ১ ছেলে ও ১ মেয়ে। বিয়ে করার পর তারা বসবাস শুরু করেন বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশন শহরের রেলওয়ে কলোনীর সাহেব পাড়ায় ভাড়া করা টিনের ঘরে। বিয়ের পর থেকে স্বামীর ফেরি করা আয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল পেয়েরা বেগমকে। তখন পেয়েরা বেগমও সিদ্ধান্ত নেন যে তিনিও তার স্বামীর মতো করে ফেরি করে জিনিস বিক্রি করবেন। তখন তিনি ঋন নিয়ে একটি পায়ে ঠেলা ভ্যান গাড়ি কিনেন। তার সঙ্গে কিছু জিনিস কিনে ভ্যান গাড়িতে সাজিয়ে শুরু করেন ফেরিওয়ালার ব্যবসা। ছোট পুজির ব্যবসা করে পরবর্তিতে পেয়েরা বেগম বৃদ্ধি করতে থাকেন তার ভ্যান গাড়িতে জিনিসের পরিধি। এতে করে দিন দিন পেয়েরার ব্যবসায় লাভের পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে থাকে। তারপর থেকে পেয়েরা কে আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। এখন পেয়েরার সংসারে নেই কোন অভাব। দূর হয়েছে পেয়েরা বেগমের সংসারের অভাব-অনটনের গল্প। আর নিজে কর্ম করতে পেরে খুশি পেয়েরা বেগম।

ফেরিওয়ালা পেয়েরা বেগম বলেন, তিনি প্রায় ৩ বছর যাবত এই ফেরিওয়ালার ব্যবসা করে আসছেন। এই ব্যবসা করতে পেয়েরা বেগমের ভালো লাগে। যখন তিনি মহল্লার মধ্যে যান তখন বিভিন্ন বয়সের নারীরা তার দোকানের আশেপাশে ভীড় করে। বেছে বেছে তাদের পছন্দের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কিনেন। তিনি আরোও বলেন, যতদিন বেচে আছি ও সুস্থ্য আছি ততদিন আমি এই ব্যবসাকে ধরে রাখার চেষ্টা করবো। সৎ ভাবে ব্যবসা করে সৎ উপায়ে অর্জিত অর্থ দিয়েই জীবন-যাপন করতে চাই। কর্মকে ছোট করে না দেখে সমাজের অনেক নির্যাতিত ও স্বামী কর্তৃক অবহেলিত নারীরা ইচ্ছে করলেই সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে নিজের পায়ে দাড়াতে পারেন।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/আইশি


আরও সংবাদ   বিষয়:  পেয়েরা বেগম   সান্তাহার  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩৫৩৩, মৃত্যু ৩৩
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
ফাতেমা হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up