ঢাকা, বাংলাদেশ || রবিবার, ৩১ মে ২০২০ || ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
Desh Sangbad
শিরোনাম: ■ নৌপথে যাত্রী পারাপার শুরু ■ এবার পাসের হারে এগিয়ে রাজশাহী ■ জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৮ শিক্ষার্থী ■ যেভাবে জানা যাবে এসএসসি ও সমমানের ফল ■ এসএসসি-সমমানে পাসের হার ৮২.৮৭ শতাংশ ■ বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র, আরও ৯৬০ জনের মৃত্যু ■ ৬৬ দিন পর অফিস খুলছে আজ, চলবে বাস ট্রেন লঞ্চ ■ ভাসছে ধান ভাসছে কৃষকের স্বপ্ন ■ আপাতত বন্ধ একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ■ মহাকাশের পথে প্রথম প্রাইভেট রকেটের যাত্রা ■ ডিসেম্বরের আগেই বাজারে আসছে করোনা ভ্যাকসিন ■ আজ সকাল ১১টায় এসএসসি’র ফল প্রকাশ
কক্সবাজারে কামাল চৌধুরীর নেতৃত্বে ১ম শহীদ মিনার নির্মান
আনোয়ার হাসান চৌধুরী, কক্সবাজার
Published : Friday, 21 February, 2020 at 12:01 AM, Update: 21.02.2020 12:05:02 AM
Zoom In Zoom Out Original Text

কক্সবাজারে কামাল চৌধুরীর নেতৃত্বে ১ম শহীদ মিনার নির্মান

কক্সবাজারে কামাল চৌধুরীর নেতৃত্বে ১ম শহীদ মিনার নির্মান

আজ ২১শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জতিক মাতৃভাষা দিবস। দেশ-দুনিয়ার ভাষাপ্রেমী মানুষ দিবসটিকে মর্যাদাপূর্ণ কর্মসূচীর মাধ্যমে পালন করে। কক্সবাজারবাসীও বিভিন্ন আয়োজনের মাধ্যমে দিবসটি পালন করবে। কক্সবাজারে ১৯৬২ সালে বাঁশ-গাছের অবকাঠামোতে তৈরি শহীদ মিনার থেকে শুরু করে প্রতি বছর ২১শে ফেব্রুয়ারীসহ নানা দিবসকে স্বাগত জানিয়ে দেশের জন্য প্রাণদানকারী শহীদের প্রতি মানুষ শ্রদ্ধা জানায়। তবে জেলাবাসীর অনেকের কাছে এখনো অজানা, কক্সবাজারে ১ম পাকা শহীদ মিনার কোনটি? কাঁর নেতৃত্বে এবং কাঁদের সহযোগিতায় এটি নির্মিত হয়?

এসব বিষয় নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, কক্সবাজার জেলায় মুক্তিযুদ্ধকালীন সর্বপ্রথম অস্ত্রধারী কমান্ডার, জয় বাংলা বাহিনী'৭১ এর প্রধান এবং বরেণ্য শিক্ষানুরাগী কামাল হোসেন চৌধুরীর সাথে আলাপকালে তিনি একটি ছবি দেখিয়ে বলেন, কক্সবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে তাঁর নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় প্রথম পাকা শহীদ মিনার।

৪৭ বছর আগের এ ছবিতে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বৃহত্তর চট্টগ্রাম জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি, আওয়ামীলীগের তরুণ নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কামাল হোসেন চৌধুরীর সঙ্গে শহীদ পরিবার, তৎকালের এসডিও ওমর ফারুক, সুপরিচিত ম্যাজিষ্ট্রেট চাকমা বাবু, শিক্ষক মন্ডলী ও ছাত্রবৃন্দ নিয়ে প্রথম ফুল দিতে দেখা যায়। ১৯৭২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি কামাল হোসেন চৌধুরী ১ম শহীদ মিনারটি উদ্বোধন করেন। তাঁর নেতৃত্বে এ শহীদ মিনার নির্মাণকল্পে প্রচুর পরিশ্রম করেন মরহুম শিক্ষক বদর আলম, শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম (বর্তমান বায়তুশ শরফের পরিচালক), শিক্ষক সৈয়দ আহমদ, শিক্ষক লতিফ প্রমুখ।

কিন্তু ইতিপূর্বে ১৯৬২ সালে কক্সবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের জেনারেল সেক্রেটারী কামাল চৌধুরী একঝাঁক সংগ্রামী ছাত্র-জনতা নিয়ে কক্সবাজার পাবলিক ইনিষ্টিটিউশন অঙ্গনে আমতলায় গাছ-বাঁশ দিয়ে রাতারাতি একটি শহীদ মিনারের অবকাঠামো নির্মাণ করেন। পরবর্তীতে কক্সবাজার সরকারী কলেজের প্রথম নির্বাচিত জেনারেল সেক্রেটারি কামাল চৌধুরী তাঁর কেবিনেট ও সহযোগী ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে কক্সবাজার কলেজে প্রথম শহীদ দিবস পালন করেন এবং তাঁদের নেতৃত্বে অনেক আন্দোলন করার পর বর্তমান জেলা শহীদ মিনারটি নির্মাণ করা হয়। তৎকালীন জেলা প্রশাসক এবং পৌরসভার সহায়তায় নির্মাণ করা হয়েছিল এই শহীদ মিনার।

তাছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদের সদস্য, বাংলাদেশ যুবলীগ ও কৃষকলীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার, কক্সবাজার জেলা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, জেলা কৃষকলীগের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক ও সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার সদর আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করা এই নেতা আরও বলেন, আমি সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করি, মাতৃভাষার জন্যে অকাতরে রক্তদান ও প্রাণ বিসর্জনকারী ৫২ এর শহীদান, সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, ৬২ এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬এর ছয়দফা, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী ৩০ লক্ষ শহীদান এবং সম্ভ্রম হারানো মা বোনদের। স্বাধীনতা লাভের পরে বঙ্গবন্ধু সরকারের সাড়ে তিন বছরকালে অফিস আদালত, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও স্কুল কলেজে বাংলা ভাষা ব্যবহারের পূর্ণ প্রচলন হয়।

এই প্রবীনতম জননেতা অতিদুঃখের সাথে বলেন, জেলার প্রথম পাকা শহীদ মিনারটিতে উক্ত বিদ্যালয়ের শহীদ ছাত্র-শিক্ষকদের তালিকা ভেঙ্গে উপড়ে ফেলা হয়েছে। 

বর্তমানে শহীদ মিনারটির সংস্কারকাজ চলছে। সেখানে অনতিবিলম্বে নতুনভাবে শহীদ ছাত্র, শিক্ষক ও উদ্বোধকসহ সংশ্লিষ্ট সকলের নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। আর তা বাস্তবায়ন হলেই তরুণ প্রজন্ম ইতিহাসের সঠিক ধারণা পাবে এবং আরও বেশি উৎসাহিত হবে।

উল্লেখ্য যে, ৫২-৫৩ সালে কক্সবাজার স্কুলের সিনিয়র ছাত্র প্রয়াত আমিরুল কবির চৌধুরী (সাবেক বিচারপতি), বাদশা মিয়া (রাজনৈতিক, পেশকার পাড়া), গোলাম রহমান (বাহার ছড়া), জয়নাল আবেদিন (ব্যাংকার, বাহার ছড়া) প্রমুখের নেতৃত্বে কক্সবাজারে ভাষা আন্দোলন হয়। বর্তমানে একুশ এলে অনেক হাঁকডাক করা হয়। একুশ গেলেই সবশেষ। এখনো বাঙ্গালীর মাঝে ছদ্মবেশে থাকা ষড়যন্ত্রকারীরা বাংলা ভাষার প্রতি ষড়যন্ত্র শুরু করে দেয়।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এসআই


আরও সংবাদ   বিষয়:  কক্সবাজার   শহীদ মিনার  




আপনার মতামত দিন
আরো খবর
করোনা আপডেট
ইউনাইটেডে আগুনে পুড়ে ৫ করোনা রোগীর মৃত্যু
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft
logo
up