ঢাকা, বাংলাদেশ || রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০ || ২১ চৈত্র ১৪২৬
শিরোনাম: ■ অবশষে পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ■ নিউইয়র্কে ২৪ ঘণ্টায় ৬৩০ জনের মৃত্যু ■ ১১ এপ্রিল পর্যন্ত পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার আহ্বান ■ পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত খেলাধুলা বন্ধ থাকবে ■ কারখানায় না এলে শ্রমিকদের চাকরি যাবে না ■ সব ভবিষ্যদ্বাণীকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েছে করোনা ■ রোববার থেকে ১০ টাকায় চাল ■ চীনে করোনায় মৃত্যু ৪৭ হাজার ■ বাংলাদেশে ২০-৫০ লাখ মৃত্যুর আশঙ্কা অতিরঞ্জিত ■ বাংলাদেশকে ১০০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক ■ পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ■ অকারণে বাইরে গেলে কঠিন ব্যবস্থা নেয়া হবে
গুরুদাসপুরে ইটভাটার শ্রমিককে শিকলে বেঁধে নির্যাতন
সাকলাইন শুভ, নাটোর
Published : Saturday, 29 February, 2020 at 2:55 PM

রাম বসাক

রাম বসাক

গুরুদাসপুরের মেসার্স এএসবি বিক্সস নামের ইটভাটার একটি গোপন কক্ষে আটকে রেখে রাম বসাক (৩৫) নামের এক শ্রমিককে শিকলে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। তিনদিন ধরে ইটভাটার মালিক আ.লীগ নেতা আব্দুর রহিম মোল্লার ছেলে আলমগীর মোল্লা ও তার ভাতিজা ছাবলু যৌথভাবে ওই নির্যাতন চালিয়েছেন।

শনিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে নির্যাতিত রাম বসাকের পিতা ছুটু বসাক গুরুদাসপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলেও পুলিশ দুপুর ১২টা পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

নির্যাতনের শিকার শ্রমিক রাম বসাক জানান, তিনি উপজেলার শাহাপুর গ্রামের আ.লীগ নেতা আব্দুর রহিম মোল্লার ইটভাটায় মাটি তৈরির কাজ করেন। অভাবে পড়ে বর্ষা মওসুমে ১৫ হাজার টাকার অগ্রিম শ্রম বিক্রি করে ছিলেন তিনি। তাও সিরাজুল ইসলাম নামের এক সর্দারের মাধ্যমে। চার মাস আগে কাজ শুরু করে ১৫ হাজার টাকা শোধ করেছেন তিনি। কিন্তু সর্দার সিরাজুলসহ কিছু শ্রমিক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে শিকলবন্দি করে নির্যাতন করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গুরুদাসপুরের শাহাপুর গ্রামে আ.লীগ নেতা আব্দুর রহিম মোল্লার মেসার্স এএসবি বিক্সস নামের একটি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে।সেখানেই অগ্রিম বিক্রি করা শ্রম কাজের মাধ্যমে পরিশোধ করছিলেন পার্শ্ববর্তী তাড়াশ উপজেলার ছুটু বসাকের ছেলে রাম বসাক। ওই উপজেলারই শ্রীকৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম এই ইটভাটার শ্রমিক সর্দারের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

মেসার্স এএসবি বিক্সসের স্বত্বাধীকারি আ.লীগ নেতা আব্দুর রহিম মোল্লা দাবি করেন, তার ভাটায় কাজ করার জন্য শ্রমিক সর্দার সিরাজুল ইসলাম অগ্রিম ১৫ লাখ টাকা নিয়ে ছিলেন। এরমধ্যে শ্রমিকের কাজ করার মাধ্যমে ৯ লাখ টাকা পরিশোধ করে পালিয়েছেন। তবে যাকে শিকলে বেঁধে রাখা হয়েছে তিনি শ্রমিক হলেও সর্দারকে ধরতেই তাকে আটকে রাখা হয়েছে।

নির্যাতিত শ্রমিক রাম বসাকের পিতা ছুটু বসাক অভিযোগ করে জানান, কাজের জন্য শ্রমিক সর্দারের কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা নিয়েছিল। সেই টাকা পরিশোধ হলেও ছেলেকে তিন দিন ধরে শিকলে বেঁধে নির্যাতন চালানো হয়েছে।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে বিষয়টি দেখা হচ্ছে।

দেশসংবাদ/প্রতিনিধি/এসকে


আরও সংবাদ   বিষয়:  গুরুদাসপুর   ইটভাটা   রাম বসাক  



মতামত দিতে ক্লিক করুন
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর >>
সর্বাধিক পঠিত
ফেসবুকে আমরা
English Version
More News...
সম্পাদক ও প্রকাশক
এম. হোসাইন
উপদেষ্টা সম্পাদক
ব্রি. জে. (অব.) আবদুস সবুর মিঞা
এনামুল হক ভূঁইয়া
যোগাযোগ
ফোন : ০২ ৪৮৩১১১০১-২
মোবা : ০১৭১৩ ৬০১৭২৯, ০১৮৪২ ৬০১৭২৯
ইমেইল : [email protected]
Developed & Maintenance by i2soft